বহেড়া/Terminalia bellirica,বহেড়ার ঔষধি গুণ/POSSIBLY EFFECTIVE FOR...

বহেড়া গুড়া ৫০ গ্রাম ৪০/- টাকা, আস্ত কেজি ২০০/-
বাজার দর অনুযায়ী মূল্য পরিবর্তনশীল এবং ষ্টক থাকা সাপেক্ষে।
সকল পণ্য হালাল রুপে বাছাই করে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে ধুয়ে রোদে শুকিয়ে বাজারজাত করা হয়।
বনাজী ঔষধালয়ে নুতন পণ্যের অর্ডার বিবরনমূল্য জানতে ফেসবুক     
পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন, share করে সহযোগিতা করুন প্লিজ।
ভেষজ গাছ গাছড়ার গুনাগুণ  উপকারিতা জানতে ভিজিট করুন এবং  subscribe করুন। ধন্যবাদ।
Please subscribe for next posts, Thanks.
বহেড়া  হলো
আমলকী.হরিতকী, বহেড়া=ত্রিফলার একটি ফল।
বহেড়া (বৈজ্ঞানিক নাম: Terminalia bellirica) (ইংরেজি: bahera or beleric or bastard
myrobalan) Combretaceae পরিবারের Terminalia গণের একটি বৃক্ষ।
আমাদের দেশের কোন কোন অঞ্চল এবং ভারতের ছোটনাগপুর, বিহার, হিমাচল প্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশে প্রধানতঃ এ গাছ বেশি দেখা যায়। পশ্চিমবঙ্গের বীরভুম,
বাঁকুড়া ও বর্ধমানের শালবনেও এ গাছ প্রচুর জন্মে। উত্তোলণের সময়: শীতের প্রাক্কালে ফল সংগ্রহ করা হয়।
আবাদী/অনাবাদী/বনজ: এই গাছটি সাধারনতঃ বনজ জাতীয় গাছ।গ্রীষ্মকালে এই গাছে ফুল আসে। তারপর হয় ফল।
 সেই ফল পুষ্ট হয় শীতের প্রাক্কালে। তারপর আপনা আপনি ঝরে পড়ে। এই গাছ রোপনের দরকার হয়না। 
পতিত জমির ধারে, জমির আইলে এটি আপনা আপনি জন্মে।
ঔষধি গুণাগুণ
**আমাশয়ঃ সাদা বা রক্ত যে কোনও আমাশয়ে প্রতিদিন সকালে এক গ্লাস পানির সাথে এক চামচ 
বহেড়া গুড়া খেলে উপকার পাওয়া যায়।
অকালে চুল পাকলেঃ বহেড়ার বিচি বাদ দিয়ে ১০ গ্রাম ছাল নিয়ে পানি দিয়ে বাটুন। এক কাপ পানিতে
 গুলে পানি ছেঁকে নিন, এবার সে পানি দিয়ে চুলধুয়ে ফেলুন। এর ফলে চুল ওঠা বন্ধ হয়।
**শ্লেস্মায়ঃ আধা চা-চামচ বহেড়া গুড়া, ঘি গরম করে তার সাথে মিশিয়ে আবার গরম করে মধু 
মিশিয়ে চেটে খেলে উপকার পাওয়া যায়।
**ইন্দ্রিয়-দৌর্বল্যেঃ এ রোগ থেকে মুক্তি পেতে হলে রোজ দু’টি করে বহেড়া বিচির শাঁস খেতে হবে। 
এর ফলে এই রোগ ভাল হয়।
**শ্বেতী রোগেঃ বহেড়া বিচির শাঁসের তেল বের করে শ্বেতীর ওপর লাগালে গায়ের রং অল্পদিনের 
মধ্যেই স্বাভাবিক হবে।
**অকালে টাক পড়লেঃ বহেড়া বিচির শাঁস অল্প পানিতে মিহি করে বেটে চন্দনের মতো টাকে লাগালে,
 টাক সেরে যায়।
**ফুলা কমানোর জন্যঃ বহেড়ার বিচি বাদ দিয়ে ছাল বেটে একটু গরম করে ফুলায় প্রলেপ দিলে 
ফুলা কমে যায়।
**কৃমি রোগ : বহেড়া বিচি বাদ দিয়ে শাঁসের গুড়া ডালিম পাতার রসের সাথে মিশিয়ে খেলে 
কৃমি দূর হয়।
বহেড়ার আরেক নাম বিভিতকি। তবে আমাদের দেশে বহেড়া নামেই বেশি পরিচিত। ভেষজবিদদের গবেষনায় 
মহৌষধি হিসেবে পরিচিত ত্রিফলার মধ্যে বহেড়া অন্যতম। 
বহেড়া ফলটি উপমহাদেশের প্রাচীনতম আয়ুর্বেদিক ওষুধ হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে। বহেড়া বিশেষভাবে 
পরিশোধিত হয়ে এর ফল, বীজ ও বাকল মানুষের বিভিন্ন রোগ
প্রতিরোধে ও চিকিৎসায় ব্যবহার হয়ে আসছে আদিকাল থেকে। ভেষজবিদদের বহেড়া নিয়ে দীর্ঘ গবেষণায় বিভিন্ন 
উপকারিতার কথা উল্লেখ করেছেন। বহুগুণে ভরা বহেড়া মানব দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহযোগিতা করে
Terminalia bellirica
Terminalia bellirica, known as bahera or beleric or bastard myrobalan, 
(Arabic: beliledj بليلج,[1] Sanskrit: Bibhitaka बिभीतक, Aksha अक्ष[3]), is a 
large deciduous tree common on plains and lower hills in Southeast Asia,
where it is also grown as an avenue tree. The basionym is Myrobalanus 
bellirica Gaertn. (Fruct. Sem. Pl. 2: 90, t. 97. 1791). William Roxburgh 
transferred M. bellirica to Terminalia as "T. bellerica (Gaertn.) Roxb.". 
This spelling error is now widely used, causing confusion. The correct 
name is Terminalia bellirica (Gaertn.) Roxb.
The leaves are about 15 cm long and crowded toward the ends of the branches.
It is considered a good fodder for cattle. Terminalia bellirica seeds have 
an oil content of 40%, whose fatty-acid methyl ester meets all of the major 
biodiesel requirements in the USA (ASTM D 6751-02, ASTM PS 121-99), Germany 
(DIN V 51606) and European Union (EN 14214). The seeds are called bedda 
nuts.[6] In traditional Indian Ayurvedic medicine, Beleric is known as 
"Bibhitaki" (Marathi: "Behada or Bhenda") (Terminalia bellirica). Its fruit 
is used in the popular Indian herbal rasayana treatment triphala. In 
Sanskrit 
it is called bibhītaka बिभीतक. In India, Neemuch (A Town in Malwa Region of 
MadhyaPradesh) is a major trading centre of De-Skinned Baheda & Whole 
Fruits of Terminalia Bellirica . Terminalia Bellirica is widely collected 
in wild in Malwaregion of Madhya Pradesh and is traded in Neemuch APMC Yard.
According to Dymock, Warden, Hooper: Pharmacographia Indica 1890 :
"This tree, in Sanskrit Bibhita and Bibhitaka (fearless), is avoided by the 
Hindusof Northern India, who will not sit in its shade, as it is supposed 
to be inhabitedby demons. Two varieties of T. belerica are found in India, 
one with nearly globularfruit, 1/2 to 3/4 inch in diameter, the other with 
ovate and much larger fruit. The pulp of the fruit (Beleric myrobalan) is 
considered by Hindu physicians to be astringent and laxative, and is 
prescribed with salt and long pepper in infections of the throat and chest. 
As a constituent of the triphala (three fruits), i.e., emblic, 
beleric and chebulic myrobalans, it is employed in a great number of diseases, 
and the kernel is sometimes used as an external application to inflamed parts. 
On account of its medicinal properties the tree bears the Sanskrit synonym of 
Anila-ghnaka, or "wind-killing."According to the Nighantus the kernels are 
narcotic."In the Charaka Samhita, the ancient Ayurvedic text, Bibhitaki fruits 
are mentioned as having qualities to alleviate disease, and bestow longevity, 
intellectual prowess and strength. There are several "rasaayan" described in 
the Charaka Samhita, that use Bibhitaki.Description of Fourth Amalaka Rasaayan, 
which includes Bibhitaki as one of the fruits:
By this treatment, the sages regained youthfulness and attained disease-free 
life of many hundred years, and endowed with the strength of physique, 
intellect and senses, practiced penance with utmost devotion.This kernels are 
eaten by the Lodha people of the Indian subcontinent for their mind-altering 
qualities.The nuts of the tree are rounded but with five flatter sides. It 
seems to be these nutsthat are used as dice in the epic poem Mahabharata and 
in Rigveda book 10 hymn 34. A handful of nuts would be cast on a gaming board 
and the players would have to call whether an odd or even number of nuts had 
been thrown.In the Nala, King Rituparna demonstrates his ability to count 
large numbers instantaneously by counting the number of nuts on an entire 
bough of a tree.
POSSIBLY EFFECTIVE FOR...
Chest pain (angina). Some research shows that taking Terminalia by mouth with conventional medications improves symptoms in people experiencing chest pain after a heart attack.
Congestive heart failure (CHF). Some research shows that taking Terminalia by mouth with conventional medications for 2 weeks improves symptoms in people with CHF.
INSUFFICIENT EVIDENCE TO RATE EFFECTIVENESS FOR...
Earaches.
HIV infection.
Lung conditions.
Severe diarrhea.
Urinary problems.
Water retention.
Other conditions.
More evidence is needed to rate the effectiveness of Terminalia for these uses.
Special Precautions & Warnings:
Pregnancy: There is some evidence that Terminalia 
arjuna is POSSIBLY UNSAFE duringpregnancy. The safety 
of the other two species during pregnancy is unknown. 
It's best to avoid using any terminalia species.
Breast-feeding: There is not enough reliable information 
about the safety of Terminalia if you are breast-feeding. 
Stay on the safe side and avoid use.
Diabetes: Terminalia might lower blood sugar levels. Your 
diabetes medications might need to be adjusted by your 
healthcare provider.
Surgery: Terminalia might decrease blood sugar levels and 
interfere with blood sugar control during surgery. Stop 
taking Terminalia at least 2 weeks before a scheduled surgery.


Newer Posts Newer Posts Older Posts Older Posts

Comments

Post a Comment