শতমূলী/ASPARAGUS RACEMOSUS, শত কাজে শতমূল/EVIDENCE TO RATE EFFECTIVENESS FOR...

শতমূলী/ASPARAGUS RACEMOSUS
                     Please visit: http://bonajiousadhaloy.blogspot.com
                 Coming soon website:www.natureandentertainment.com
     email: [email protected]
Show room: H#28, Road#4, Block#F, Banasree, Rampura Dhaka, Bangladesh
Office: H#4, Road#4, Block#G, Banasree, Rampura Dhaka, Bangladesh
           +8801819208354
           +8801620120817
এখানে সুলভ মূল্যে গাছ-গাছড়ায় তৈরী ভেষজ ঔষধ ও উন্নত মানের মশলা পাওয়া যায়All kinds of  herbal foods and spices available here.
এটা †Kv‡bv †cÖmwµcmb bq| This is not a prescription.
Take advise from the Doctor before use.
শতমূলী
শতমূলী এর পিরিচিতি, ও ওষধি ব্যবহার******
একটা ভেজষ উদ্ভিদ
বাংলা নাম: শতমূলী, ইংরেজ নাম: Asparagas, বৈজ্ঞানিক নাম: Asparagas racemosus, পরিাবার: Liliaceae (Lily family)
অন্যান্য নামঃ Satawari, Wild Asparagus • Hindi: सतावरी satawari, bojhidan, शतवीर shatavir • Manipuri: নুংগাৰৈ Nunggarei • Marathi: सतावरी मूल Satavari-mul, आसवेल Asvel • Tamil: ஸதாவரீ Sadavari, Tannir-muttan-kizhangu, கிலவரீ Kilavari • Malayalam: ചതവലീ Chatavali, സതവലീ Satavali • Telugu: challa-gaddalu, challagadda, ettavaludutige • Kannada: aheruballi, ashadhi, halarru-makkal • Bengali: সতমুলী Satamuli, সতমূল Satamul • Oriya: ବରୀ Vari • Urdu: ستاور Satawar, شقاقل مسری Shaqaqul misri • Assamese: সতোমূল Satomul • Sanskrit: Abhiru, शतावरी Shatavari, हिरण्यस्रिंगी Hiranyasringi • Mizo: Arkebawk
শতমুল মূলত লতাজাতীয় উদ্ভিদ। বাড়ির আনাচে-কানাচে পতিত কিংবা অপতিত সব ধরনের জমিতে এটা জন্মাতে পারে। অনেক মূল্যবান ঔষধি উদ্ভিদ। নিজেদের প্রয়োজনের জন্য মানুষ এটাকে যতœ সহকারে বাড়িতে লাগিয়ে রাখেন। অনেকেই লতানো এই গাছকে শোভাবর্ধনের জন্য সোজা লাঠির সাথে বেঁধে দেন।
শতমুলীকে যত্রতত্র দেখা পাওয়া ভার। যারা পেশায় কবিরাজ তারা ভেষজ চিকিৎসার জন্য নিজেদের আঙিনায় এই উদ্ভিদকে সংরক্ষণ করে রেখেছেন। নাতিশীতষ্ণ পরিবেশই এর মূল স্থান। গাছের গোঁড়াতে অক্টোবর মাসের দিকে মূল ধরতে শুরু করে। জানুয়ারি মাসে গাছে সবুজ রঙের ফল দেখা যায়, তবে পাকলে লাল হয়ে যায়। শতমুলের মূলটাই হল আসল। এই মূলের রস ঔষধ হিসেবে নানা রোগে ব্যবহৃত হয়। লিউকোরিয়া, বদহজম, গনোরিয়া, ধাতুরোগ, গ্যাসটিক, আমাশয়, ডায়রিয়া, ব্যাথা উপশমসহ নার্ভের দূর্বলতায় শতমূল অধিক কার্যকরী।
ঔষধি ব্যবহার:
১। স্নায়ুশক্তি বৃদ্ধি ও শারীরিক দুর্বলতা : শতমূলীর রস (কাঁচা) ১৫-২০ মিলি. (৩-৪ চামচ) ১ গ্লাস পরিমাণ দুধের সাথে মিশিয়ে সকাল ও বিকেলে সেবন করলে উপকার পাওয়া যায়। তবে উল্লিখিত নিয়মে ১০-১৫ দিন সেবন করে যাওয়া উচিত।
২। শুক্রমেহ ও স্বপ্নদোষ প্রশমনে : ১০ গ্রাম পরিমাণ শতমূলী চূর্ণ প্রত্যহ দুধসহ দু’বার সেবন করলে ফল পাওয়া যায়। উল্লিখিত নিয়মে ১ মাস সেবন করে যাওয়া উচিত।
৩। স্তন্য দুগ্ধ বৃদ্ধিতে : ৫ গ্রাম পরিমাণ শতমূলী চূর্ণ ও ৫ গ্রাম পরিমাণ অর্শ্বগন্ধ চূর্ণ একত্রে মিশিয়ে প্রত্যহ দু’বার সেবন করতে হবে। উল্লিখিত নিয়মে ৫-৭ দিন সেবন করতে হবে।
৪। মূত্র স্বল্পতায় : শতমূলীর রস ১৫-২০ ফোঁটা (৩-৪) চামচ এক গস পরিমাণ ডাবের পানির সাথে মিশিয়ে প্রত্যহ দু’বার সেবন করতে হবে। উল্লিখিত নিয়মে ৫-৭ দিন সেবন করতে হয়।
৫। শারীরিক, যৌন দূর্ভলতা ও সাদা স্রাবে, এর মূলচুর্ণ ৩/৪ গ্রাম পরিমান ১কাপ গরম দুধের সাথে মিশিয়ে দিনে দুবার ১মাস সেবন করিতে হবে।
এ ছাড়া
* উচ্চরক্তচাপ কমায়।
* এসিডিটি, দুর্বলতা, যেকোনো ধরনের ব্যথা, ডায়রিয়া, আমাশয় দূর করে।
* শরীরের নানা ধরনের প্রদাহ, পাইল্স সারিয়ে তোলে।
* চোখ ও রক্তের যেকোনো সমস্যা দূর করে।
* নার্ভের কার্যক্ষমতা ঠিক রাখে।
* শতমূলীর শিকড় লিভার, কিডনি ও গনোরিয়ার জন্য উপকারী।
* যাদের বদহজমের সমস্যা রয়েছে, তারা শতমূলীর শিকড় রস করে তাতে মধু মিশিয়ে খান, উপকার পাবেন।
* ঋতুস্রাব ও জরায়ুর অসুস্থতা ছাড়াও লিউকোরিয়া রোগীদের জন্য ব্যবহার হয়।
*শতমূলীর স্বাস্থ্য গুণাগুণ অনেক। এটি উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আনে। অ্যাসিডিটি, শারীরিক দুর্বলতা, ব্যথা, ডায়রিয়া, আমাশয় ও শরীরের নানা প্রকার প্রদাহ দূর করে।
*রোগ অনুযায়ী ব্যবহার পদ্ধতি: হজমশক্তি র্বদ্ধি ও বায়ু নিঃসরণে, এর ফল প্রয়োজন মত তরকারি রান্না করে খেতে হবে।
*বাত-ব্যাথায় ও স্নায়ু দুর্বলতায়, এর ছালের রস প্রয়োজন মত রসের সাথে প্রয়োজন মত রসুন পিষে প্রলেপ দিতে হবে।
সাধারণত ব্যবহার :
শতমূলী লতানো উদ্ভিদ বিধায় অনেকে বাগানে এবং বাড়ির আঙিনায় শোভা বৃদ্ধির জন্য এ গাছ লাগিয়ে থাকেন। সবজি ও আয়ুর্বেদিক উপাদান হিসেবে শতমূলীর ব্যবহার রয়েছে। শতমূলীর বিভিন্ন অংশ দিয়ে নানা ধরনের ওষুধ তৈরি হয়।
বর্তমানে পৃথিবীর প্রায় সব অঞ্চলে শতমূলীর চাষ হলেও এর শুরুটা ছিলো এখন থেকে প্রায় দুই হাজার বছর আগে পূর্ব ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে।
শতমূলী সহজে চাষযোগ্য একটি ভেষজ উদ্ভিদ। বাড়ির আনাচে-কানাচে, পতিত জমিতে এমন কি যেসব জমিতে সহজে ফসল করা যায় না সেসব জমিতে অনায়াসে শতমূলীর চাষ করা যায়। এটি যেমন প্রাথমিক চিকিৎসা নিশ্চিত করে তেমনি অর্থমূল্যও অনেক। সেজন্য আসুন যার যেখানে সুযোগ আছে শতমূলী চাষে সচেষ্ট হই। এতে মানুষ চিকিৎসাসেবা পাবে, দেশের ওষুধ শিল্প সমৃদ্ধ হবে এবং দেশের চাহিদা পূরণ করেও বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব হবে।
ASPARAGUS RACEMOSUS
Asparagus racemosus is a plant used in traditional Indian medicine (Ayurveda). The root is used to make medicine.
Don’t confuse asparagus racemosus with Asparagus officinalis, which is the type of asparagus that is commonly eaten as a vegetable.
People use asparagus racemosus for upset stomach (dyspepsia), constipation, stomach spasms, and stomach ulcers. It is also used for fluid retention, pain, anxiety, cancer, diarrhea, bronchitis, tuberculosis, dementia, and diabetes.
Some people use it to ease alcohol withdrawal.
Women use asparagus racemosus for premenstrual syndrome (PMS) and uterine bleeding; and to start breast milk production.
Asparagus racemosus is also used to increase sexual desire (as an aphrodisiac).
Health Benefits of Asparagus racemosus
*Maintains Homocysteine Level
*Helps in Pregnancy
*Fights PMS
*Improves Digestion
*Anticancer Potential
*Controls Diabetes
*Relieves Hangovers
*Eye Care
*Treats Rheumatism
*Rich in Rutin
*Neuroprotective Properties
*Relieves Depression
*Treats Epilepsy
*Treats Urinary Tract Infections
*Maintains Blood Cholesterol Level
Side Effects of Asparagus
Asparagus is also referred to as Rasayana herb in Ayurveda and offers an immense range of health benefits with a few exceptions or side effects, which are listed below.
Gas: Asparagus contains a carbohydrate known as raffinose.  In order to digest this complex sugar, the human body needs to ferment it. During this process of breaking down the carbohydrate, gas is often produced and subsequently released from the body.
Pregnancy and Lactation: Asparagus alters the hormonal balance and has been traditionally used for birth control. During pregnancy and lactation, it is usually considered safe to consume a normal amount of asparagus, but not to opt for medicinal doses without consulting a doctor.
Allergic Reactions: Asparagus can cause allergies
Kidney Stones: Asparagus contains purines. Purines break down to create uric acid which can accumulate as a result of high purine content in the body. This is not favorable for people suffering from uric acid-related complications like gout or kidney stones.  It is recommended to avoid or restrict the intake of purine dense foods like asparagus for patients with those conditions.
Asparagus rejuvenates and acts as a tonic for the nerves.  It is also useful in conditions like acne, jaundice, schistosomiasis, and leprosy. It strengthens the immune system and helps in promoting overall physical and mental well-being. Include this food in your diet and enjoy the benefits!
Newer Posts Newer Posts Older Posts Older Posts

Comments

Post a Comment