জিনসেং/Ginseng, জিনসেং এর উপকারিতা ।Proven Health Benefits of Ginseng

জিনসেং/Ginseng
   Please subscribe
              ১নং জিনসেং ১০ গ্রাম ২০০/- টাকা
বাজার দর অনুযায়ী মূল্য পরিবর্তনশীল এবং ষ্টক থাকা সাপেক্ষে।
সকল পণ্য হালাল রুপে বাছাই করে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে ধুয়ে রোদে শুকিয়ে বাজারজাত করা হয়।
বনাজী ঔষধালয়ে নুতন পণ্যের অর্ডার বিবরনমূল্য জানতে ফেসবুক     
পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন, share করে সহযোগিতা করুন প্লিজ।
ভেষজ গাছ গাছড়ার গুনাগুণ  উপকারিতা জানতে ভিজিট করুন এবং  subscribe করুন। ধন্যবাদ।
Please subscribe/like/follow for next posts, Thanks.
                                                 জিনসেং                                                   

ওমেন্সকর্নার ডেস্ক ফেব্রুয়ারি ২১, ২০১৮
জিনসেং মাংসল মূলবিশিষ্ট এক ধরনের বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদ। এটি উত্তর গোলার্ধে পূর্ব এশিয়াতে, বিশেষ করে চীন, কোরিয়া ও পূর্ব সাইবেরিয়াতে, ঠাণ্ডা পরিবেশে জন্মে। শক্তিবর্ধক টনিক হিসেবে বিভিন্ন দেশে জিনসেংয়ের প্রচলন আছে। জিনসেং শব্দটা উচ্চারণের সাথে যে দেশটির নাম উচ্চারিত হয় সেটি হলো কোরিয়া। জিনসেংকে অনেকে কোরিয়ান ভায়াগ্রা বলে থাকে। জিনসেং হলো গাছের মূল। হাজার হাজার বছর ধরে কোরিয়াতে জিনসেং ওষুধি গুণাগুণের জন্য ব্যবহৃত হয়ে আসছে। জিনসেং গাছের মূল রোগ প্রতিরোধক এবং ইংরেজিতে বললে বলতে হয় Proactive tool in warding off disease। জিনসেংকে কোরিয়ানরা বিভিন্নভাবে খেয়ে থাকে। এর পুরো মূল সুপে দিয়ে দেয়, সিদ্ধ মূল খেতে হয়। চিবিয়ে চিবিয়ে এর নির্যাস নিতে হয়। এছাড়াও জিনসেং-এর রয়েছে নানাবিধ খাদ্য উপকরণ।
জিনসেং কে বলা হয় wonder herbs বা আশ্চর্য লতা। চীনে সহস্র বছর ধরে জিনসেং গাছের মূল আশ্চর্য রকম শক্তি উতপাদনকারী পথ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এছাড়াও এর রয়েছে নানাবিধ গুন। চীন থেকে কেউ বেড়াতে আসলে সাধারণত দেখা যায় জিনসেং ও সবুজ চা কে গিফট হিসেবে নিয়ে আসতে। সেইরকম একটা গিফট পাওয়ার পরে ভাবলাম যে এই আশ্চর্য লতার গুন কে আসলে বৈজ্ঞানিক ভাবে প্রমাণিত নাকি এ শুধুই প্রাচীন চাইনিজ মিথ? ঘাটতে গিয়ে পেলাম নানা তথ্য। আমাদের দেশের মানুষেরা এটা সম্পর্কে কম-ই জানেন। তাই জিনসেং সম্পর্কে একটি পরিপূর্ণ ধারণা দেওয়ার উদ্দেশ্যে আজকের পোস্ট।
জিনসেং কোরিয়াতে এবং দেশের বাইরে জনপ্রিয় হলেও এর চাষাবাদ কিন্তু বেশ কঠিন। বর্হিবিশ্বে জিনসেং-এর প্রচুর চাহিদা মেটানোর জন্য কোরিয়ার Gyeong sangbuk-do প্রদেশের পুঞ্জী এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে জিনসেং-এর সফল চাষাবাদ চলছে সেই ১১২২ খ্রিস্টাব্দ থেকে। এই পুঞ্জী এলাকা জিনসেং দেশ হিসাবে ঐতিহাসিকভাবে পরিচিত। ষোলশো শতাব্দী থেকেই এই এলাকায় জিনসেং খামার গড়ে উঠেছে। বর্তমানে এটি কোরিয়ার সবচেয়ে বিখ্যাত জিনসেং উৎপাদনকারী এলাকা। পুঞ্জীতে Sobeaksan পাহাড়ে ৪০০-৫০০ মিটার উচ্চতায় জিনসেং-এর চাষ করা হয়। পাহাড়ের শীতল আবহাওয়া এবং উর্বর মাটি পুঞ্জী এলাকার জিনসেং-কে বলশালী করে তোলে। প্রতিবছর অক্টোবরের প্রথমদিকে পুঞ্জীতে জিনসেং উৎসব হয়ে থাকে। এই উৎসবে খেত থেকে সদ্য তোলা জিনসেং-এর স্বাদ গ্রহণ করা যায়। পরিভ্রমণকারীরা জিনসেং তুলবার অভিজ্ঞতাও নিতে পারে এই উৎসবে। জিনসেং উৎসবে আয়োজন করা হয় নানা রকম প্রতিযোগিতার। এর একটি হলো দি বেস্ট জিনসেং। অর্থাৎ কোন জিনসেং মূলটি দেখতে সবচেয়ে আকর্ষণীয়।
এর জন্য ৪টি শর্ত হলো:
(১) মূলের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা এবং একই সাথে মূলটি দেখতে একজন মানুষের আকৃতির কতটা কাছাকাছি হয়েছে।
(২) মূলের বাইরের স্তরের পুরুত্ব এবং মূলের ওজন।
(৩) মূলের দৈর্ঘ্য এবং
(৪) জিনসেং মূলটির বয়স ছয় বছর হতে হবে।
গাছের বয়স ছয় বছরের উপরে চলে গেলে মূল শক্ত হয়ে যায় এবং এর ওয়ুধি গুণাগুণ হ্রাস পায়। অবশ্য যে সব জিনসেং বন-বাদাড়ে প্রাকৃতিকভাব্ জন্মায় সেগুলোর মূলের গুণাগুণ ছয় বছরের পরও বিদ্যমান থাকে। আমেরিকা এবং ইউরোপে ফাংশনাল ফুড হিসেবে এটি বহুল প্রচলিত। এর বহুমুখী উপকারিতা, ঔষধি গুণের কথা বিবেচনা করে বিশ্বব্যাপী নতুন নতুন উৎপাদন পদ্ধতির উদ্ভাবন চলছে, যাতে করে এই মহামূল্যবান ঔষধিটি নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে পৃথিবীর যে কোনো স্থানে উৎপাদন করা যায়। এর চাষাবাদ বেশ কঠিন ও সময়সাপেক্ষ। মাঠপর্যায়ে মাটিতে চাষাবাদের জন্য সুনির্দিষ্ট নিম্ন তাপমাত্রার প্রয়োজন।
কোরিয়ান জিনসেং (Panax ginseng) Araliaceae পরিবারের Panax ধরনের মাংসল মূল বিশিষ্ট বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদ প্রজাতি; যা পূর্ব এশিয়ায় বিশেষ করে চীন, কোরিয়া ও পূর্ব সাইবেরিয়ায় ঠান্ডা পরিবেশে জন্মে এবং এর মূলটিই মূলত ঔষধি হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ‘প্যানাক্স’ শব্দটি এসেছে গ্রিক শব্দ panacea থেকে, যার অর্থ হলো All healer or cure all disease বা সর্বরোগের ওষুধ।”
জিনসেং : মুলত দুই ধরণের জিনসেং ঔষধি গুনসম্পন্ন হিসেবে পরিচিত- আমেরিকান ও এশিয়ান। এর মধ্যে এশিয়ান জিনসেং অপেক্ষাকৃত বেশি কার্যকরী। এই দুই ধরণের জিনসেং কে বলা হয় প্যানাক্স জিনসেং। প্যানাক্স শব্দটি এসেছে গ্রীক শব্দ “panacea” থেকে যার অর্থ হলো “All healer” বা সর্ব রোগের ঔষধ। জিনসেং সাদা (খোসা ছাড়ানো) ও লাল (খোসা সমেত) এই দুই রকম রূপে পাওয়া যায়। খোসা সমেত অবস্থায় এটি অধিক কার্যকরী। এদের মধ্যে থাকা জিনসেনোনোসাইড নামক একটি উপাদান এর কার্যক্ষমতার জন্য দায়ী। সাইবেরিয়ান জিনসেং নামে আরেক ধরণের গাছ আছে, যা জিনসেং বলে ভূল করা হলেও তা আসলে প্রকৃত জিনসেং না।
জিনসেং ও লিংগোত্থানে অক্ষমতাঃ জিনসেং এর গুনাবলীর মধ্যে সবচেয়ে বেশী যা প্রমানিত তা হলে, পুরুষের লিংগোত্থানে অক্ষমতা রোধে এর ভূমিকা। University of Ulsan এবং the Korea Ginseng and Tobacco Research Institute ৪৫ জন ইরেকটাইল ডিসফাংশন (লিংগোত্থানে অক্ষম ব্যাক্তি) এর রোগীর উপর একটি পরীক্ষা চালান। তাদের কে ৮ সপ্তাহের জন্য দিনে ৩বার করে ৯০০ মিগ্রা জিনসেং খেতে দেয়া হয়, এরপর দুই সপ্তাহ বিরতি দিয়ে আবার ৮ সপ্তাহ খেতে দেয়া হয়। তাদের মধ্যে ৮০% জানান যে, জিনসেং গ্রহনের সময় তাদের লিংগোত্থান সহজ হয়েছে। ২০০৭ সনে Asian Journal of Andrology এ ৬০ জন ব্যাক্তির উপর করা এবং Journal of Impotent Research এ ৯০ জন ব্যাক্তির উপর করা অনুরুপ আরো দুটি গবেষনা প্রকাশিত হয়। ২০০২ সালের একটি গবেষনায় বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেন যে, জিনসেং কিভাবে লিংগোত্থানে সহায়তা করে। পুরুষের যৌনাংগে corpus cavernosum নামে বিষেশ ধরণের টিস্যু থাকে। নাইট্রিক অক্সাইডের উপস্থিতিতে এই টিস্যু রক্তে পরিপূর্ণ হয়ে লিংগোত্থান ঘটায়। জিনসেং সরাসরি দেহে নাইট্রিক অক্সাইডের পরিমান বাড়িয়ে লিংগোত্থানে সহায়তা করে।
জিনসেং ও দ্রুত বীর্যস্খলনঃ যদিও কাচা জিনসেং এর মূল এই রোগে কিভাবে ব্যবহার করতে হয় তা জানা যায় না তবে জিনসেং এর তৈরী একটি ক্রীম (ss cream) পুরুষদের দ্রুত বীর্যস্খলন রোধে বিশ্বব্যাপী ব্যবহার হয়ে আসছে যা মিলনের একঘন্টা আগে লিঙ্গে লাগিয়ে রেখে মিলনের আগে ধুয়ে ফেলতে হয়। Journal of Urology তে ২০০০ সনে প্রকাশিত একটি গবেষনা অনুযায়ী এটি বীর্যস্খলনের সময় কাল কার্যকরী ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন ভাবে বাড়ায়। আসলে, জিনসেং শব্দটাই এসছে চাইনিজ শব্দ “রেনসেং” থেকে। “রেন” অর্থ পুরুষ ও “সেন” অর্থ “পা”, যৌনতা বৃদ্ধিতে এর অনন্য অবদান এর জন্যই এর এইরকম নাম (অবশ্য এটি দেখতেও পা সহ মানুষের মত)।
জিনসেং ও cognitive function: cognitive function বলতে বুঝায় বিভিন্ন মানসিক ক্ষমতা যেমন মনযোগ, স্মৃতিশক্তি, কথা শোনার সাথে সাথে বুঝতে পারার ক্ষমতা,কল্পনাশক্তি, শেখার ক্ষমতা, বিচারবুদ্ধি, চিন্তা শক্তি ও সমস্যা সমাধান করে কোন একটা সিদ্ধান্তে পৌছানোর ক্ষমতা। সোজা ভাষায় বলতে গেলে মানুষের বুদ্ধিবৃত্তি। জিনসেং স্নায়ুতন্তের উপর সরাসরি কাজ করে মানসিক ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। ২০০৫ সনে Journal of Psychopharmacology তে প্রকাশিত গবেষনা অনুযায়ী ৩০ জন সুস্বাস্থ্যবান যুবার উপর গবেষনা করে দেখা গিয়েছে যে জিনসেং গ্রহন তাদের পরীক্ষার সময় পড়া মনে রাখার ব্যাপারে পজিটিভ ভূমিকা রেখেছিল। একই জার্নালে ২০০০ সালে করা একটি গবেষনা, যুক্তরাজ্যের Cognitive Drug Research Ltd কর্তৃক ৬৪ জন ব্যাক্তির উপর করা একটি গবেষনা এবং চীনের Zhejiang College কর্তৃক ৩৫৮ ব্যাক্তির উপর করা একটি গবেষনা অনুযায়ী জিনসেং মধ্যবয়স্ক ও বৃদ্ধ ব্যাক্তির স্মরণশক্তি ও সার্বিক বৃদ্ধিতেও সহায়ক বলে প্রমাণিত হয়েছে। ২০০৫ সনে Annals of Neurology তে প্রকাশিত ইদুরের উপর করা গবেষনা অনুযায়ী জিনসেং মস্তিষ্কের কোষ বিনষ্টকারী রোগ যা স্মৃতিশক্তি বিনষ্ট করে (যেমন পারকিন্সন ডিজিজ, হান্টিংটন ডিজিজ ইত্যাদি) সেসব প্রতিরোধে ভূমিকা রাখে।
জিনসেং ও ডায়াবেটিসঃ ২০০৮ সনে ১৯ জন টাইপ ২ ডায়বেটিস এর রোগীর উপর করা গবেষনা অনুযায়ী জিনসেং টাইপ ২ ডায়বেটিস ম্যানেজমেন্টে কার্যকরী বলে প্রমাণিত হয়েছে।
জিনসেং ও কোলেস্টেরলঃ Pharmacological Research এ ২০০৩ সালে প্রকাশিত একটি গবেষনা অনুযায়ী, দিনে ৬ মিগ্রা হারে ৮ সপ্তাহ জিনসেং গ্রহণ খারাপ কোলেস্টেরল যেমন- total cholesterol (TC), triglyceride (TG) ও low density lipoprotein (LDL) এর মাত্রা কমাতে ও ভালো কোলেস্টেরল (High Density Lipoprotein বা HDL) এর মাত্রা বাড়াতে সহায়তা করে।
জিনসেং ও ফুসফুসের রোগঃ Chronic Obstructive Pulmonary Disease(COPD) হচ্ছে ফুসফুসের অন্যতম কমন রোগ। এই রোগীদের শ্বাস নিতে কষ্ট হয়, বুকে কফ থাকে ও কারো কারো ফুসফুসের ক্ষয় ঘটে। Archive of Chest Disease এ ২০০২ সনে প্রকাশিত ৯২ জন রোগীর উপর করা গবেষনা অনুযায়ী ১০০মিগ্রা ডোজে ৩ মাস জিনসেং গ্রহণে সার্বিক ভাবে COPD এর অবস্থার উন্নতি হয় বলে প্রমাণিত হয়েছে।
জিনসেং ও ত্বকঃ জিনসেং বিভিন্ন এন্টি-এজিং ক্রীম ও স্ট্রেচ মার্ক ক্রীম এ ব্যবহৃত হয়। এইসব ক্রীম ত্বকের কোলাজেন এর উপর কাজ করে ত্বকের বলিরেখা প্রতিরোধ করে ও গর্ভবতী নারীদের পেটের ত্বক স্ফীতির কারণে তৈরী ফাটা দাগ নিরসন করে। তবে এটির জন্য জিনসেং এর ভূমিকা কতটুকু ও ক্রীমে থাকা অন্যান্য উপাদানের ভূমিকা কতটুকু তা জানা যায়নি।
জিনসেং ও ক্যান্সারঃ জিনসেং ক্যান্সার নিরাময় করতে না পারলেও আমেরিকার ম্যায়ো ক্লিনিক ক্যান্সার সেন্টারের গবেষকরা বলছেন, ক্যান্সারে ভুগছেন এমন রোগীদের দুর্বলতা কাটাতে জিনসেং সহায়ক। ৩৪০ রোগী নিয়ে গবেষণায় দেখা গেছে, ৮ সপ্তাহ ধরে উচ্চমাত্রার জিনসেং ক্যাপসুল সেবন করেছেন এমন রোগীদের দুর্বলতা অন্যান্য পদ্ধতির চিকিৎসা গ্রহণকারীদের তুলনায় অনেক কমেছে।
জিনসেং ও রোগ-প্রতিরোধ ব্যবস্থাঃ একটি গবেষনায় ২২৭ ব্যক্তির উপর ১০০মিগ্রা দিনে এক বার করে ১২ সপ্তাহ এবং আরেকটি গবেষনায় ৬০ ব্যাক্তির উপর ১০০মিগ্রা দিনে ২বার করে ৮ সপ্তাহ জিনসেং প্রয়োগ করে দেখা গিয়েছে যে তাদের দেহের রোগ প্রতিরোধকারী কোষগুলো ( যেমন T Helper cell, NK Cell, Antibody ইত্যাদি) কার্যকর পরিমাণে বেড়ে গিয়েছে। তার মানে জিনসেং রোগপ্রতিরোধের ক্ষমতা বাড়ায়।
জিনসেং ও আরো কিছু রোগঃ মেয়েলি হরমোন বৃদ্ধি, রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা বৃদ্ধি ও শক্তি বর্ধক এনার্জি ড্রিংক হিসেবে জিনসেং দারুন কার্যকরী। জিনসেং রক্ত তরল করে স্ট্রোক প্রতিরোধ করে। আরো কয়েকটি রোগ নিরসনে জিনসেং ভূমিকা রাখে বলে লোকজ ব্যবহার হতে জানা গিয়েছে। বিজ্ঞানীরা এই রোগ গুলোর ক্ষেত্রে গবেষনা করে জিনসেং এর কার্যকরীতা অস্বীকারও করেন নি আবার নিশ্চিত ভাবে মেনেও নেননি। এইসব রোগের মধ্যে আছে, সরদি-কাশি, ইনফ্লুয়েঞ্জা, ক্যান্সার (পাকস্থলি, ফুসফুস, যকৃত, ত্বক, ডিম্বাশয়), রক্তশূণ্যতা, বিষন্নতা, পানি আসা, হজমে সমস্যা ইত্যাদি।
উপরের উপকারিতা সংক্ষেপে বলতে গেলে –
১। শারিরিক শক্তি বাড়ায় এবং দুশ্চিন্তা ও হতাশা দূর করে।
২। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
৩। পুরুষের লিংগোত্থানে অক্ষমতা রোধ করে।
৪। পুরুষদের দ্রুত বীর্যস্খলন রোধ করে।
৫। বিভিন্ন মানসিক ক্ষমতা বৃদ্ধি করে যেমন মনযোগ, স্মৃতিশক্তি, কথা শোনার সাথে সাথে বুঝতে পারার ক্ষমতা,কল্পনাশক্তি, শেখার ক্ষমতা, বিচারবুদ্ধি, চিন্তা শক্তি ও সমস্যা সমাধান করে কোন একটা সিদ্ধান্তে পৌছানোর ক্ষমতা।
৬। কোলেস্টেরল এর মাত্রা কমাতে সহায়তা করে।
৭। জিনসেং বিভিন্ন এন্টি-এজিং ক্রীম ও স্ট্রেচ মার্ক ক্রীম এ ব্যবহৃত হয়। এইসব ক্রীম ত্বকের বলিরেখা প্রতিরোধ করে।
৮। মেয়েলি হরমোন বৃদ্ধি, রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা বৃদ্ধি ও শক্তি বর্ধক হিসেবে জিনসেং দারুন কার্যকরী।
ব্যবহারবিধিঃ University of Maryland Medical Center এর মত অনুযায়ী এশিয়ান জিনসেং পূর্নবয়স্করা ২-৩ সপ্তাহ টানা খেয়ে ২ সপ্তাহ বিরতি দিয়ে আবার খেতে পারবেন। আমেরিকান জিনসেং টানা ৮ সপ্তাহ খেয়ে ২ সপ্তাহ বিরতি দিয়ে আবার খেতে পারবেন। যেহেতু এটি একটি অতি কার্যকরী ওষুধ, তাই দীর্ঘদিন ব্যবহারের কোন রকম ক্ষতি হতে পারে ভেবে এটি বেশিদিন ব্যবহার করতে মানা করা হয় (যদিও দীর্ঘ ব্যবহারে ক্ষতির কথাটার কোন বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই).. জিনসেং সাধারণত ট্যাবলেট, পাউডার, ড্রিঙ্কস হিসেবে খাওয়া হয়, এবং এদের গায়েই ব্যবহারবিধি লেখা থাকে। ট্যাবলেট বা পাউডার এর জন্য ডোজঃ University of Michigan Health System এর রিপোর্ট অনুযায়ী, মানসিক ক্ষমতা বৃদ্ধি ও লিংগ উত্থান এর জন্য ৯০০ মিগ্রা পাউডার করে দৈনিক ৩ বার, শক্তি বা স্ট্যামিনা বৃদ্ধি ও ডায়বেটিস এর জন্য এর ডোজ হলো ২০০ মিগ্রা পাঊডার করে দিনে ১ বার, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য ১০০ মিগ্রা করে দিনে ২ বার। ss cream এর জন্য ডোজ হলো ০.২ মিগ্রা। সরাসরি মূল খেলে ০.৫-২ গ্রাম মুল খাওয়া যাবে দৈনিক ১ বার। মূল কিনে খাওয়া টাই সবচেয়ে সাশ্রয়ী হয়। মূল টা চিবিয়ে খাওয়া যায়, গুড়া করে জিভের নীচে রেখে দিয়ে খাওয়া যায়, পানিতে এক ঘন্টা ভিজিয়ে রেখে পানি সহ খাওয়া যায় অথবা পানিতে ৫ মিনিট ফুটিয়ে পানি সহ খাওয়া যায়।
কোথায় পাবেনঃ সাইন্স ল্যাবরেটরির মোড়ে, ঢাকা সিটি কলেজের গেটের অপর পূর্বপাশে অবস্থিত সাইন্স ল্যাবরেটরি বিক্রয় কেন্দ্রে এটি এনার্জি ড্রিঙ্কস হিসেবে পাওয়া যায়। এ ছাড়াও মডার্ণ হারবাল গ্রুপ এবং স্কোয়ার ফার্মাসিঊটিকাল লিমিটেড এর ওয়েব সাইট এ পাওয়া তথ্য অনুযায়ী এরা জিনসেং কে ট্যাবলেট হিসেবে বিক্রি করে। যেই পণ্য ই কিনেন না কেন, দেখে নিবেন লেবেল এর গায়ে Panax ginseng লেখা আছে কিনা, কারণ এটাই অরিজিনাল এশিয়ান জিনসেং। গেণ্ডারিয়া রেলগেট, দয়াগঞ্জ বাজার, সায়েদাবাদ ব্রিজের ঢালে, ঠাঁটারি বাজারসহ বিভিন্ন জায়গায় গড়ে উঠেছে ঔষধি গাছ, লতাপাতা বিক্রির পাইকারি দোকান। এইসব জায়গায় খোজ নিয়ে দেখতে পারেন যে সরাসরি মূল পাওয়া যায় কিনা।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াঃ জিনসেং এর সবচেয়ে মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিকৃয়া হলো ঘুমের সমস্যা। আগেই বলেছি, জিনসেং স্নায়ুতন্ত্র কে উত্তেজিত করে ও মানসিক ক্ষমতা বাড়ায়। উত্তেজিত স্নায়ুর কারণে ঘুম আসতে দেরি হয়, যেমন টা হয় কফি খাওয়ার পরে। অন্যান্য সাধারণ সমস্যার মধ্যে আছে ডায়রিয়া, মাথাব্যথা, হার্ট বিট বাড়া এবং ব্লাড প্রেশারে তারতম্য হওয়া (সাময়িক)।
যারা খাবেন নাঃ বাচ্চা, গর্ভবতী ও স্তন্যদানকারী মায়েদের এটা খেতে নিষেধ করা হয়। জিনসেং স্নায়ুতন্ত্রের উপর কাজ করে তাই স্নায়ুর উপর কাজ করে এমন অন্য কোন ওষুধ (যেমন ঘুমের অষুধ, বিষন্নতার ওষুধ ইতাদি) এর সঙ্গে এটা খাওয়া উচিত না, নয়ত স্নায়ু অতিরিক্ত উত্তেজিত হয়ে যাবে। জিনসেং রক্ত জমাট বাধা প্রতিরোধ করে, তাই হার্টের রোগীরা যারা ইতমধ্যে রক্ত তরল করার অন্যান্য ওষুধ ( যেমন heparin and warfarin) খাচ্ছেন, তারা এদের সঙ্গে জিনসেং খাবেনা না। জিনসেং ব্লাড সুগার কমাতে সহায়তা করে, তাই ডায়বেটিস রোগীদেরো ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে এটা খাওয়া উচিত যাতে ওষুধের সাথে জিনসেং গ্রহণে সুগার যেন বেশি কমে না যায়। অতিকর্মক্ষম রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থার কারণে কিছু রোগ হয়, যেমন multiple sclerosis (MS), lupus (systemic lupus erythematosus, SLE), rheumatoid arthritis (RA) এদের বলা হয় Auto-immune disease। জিনসেং যেহেতু রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় তাই সাধারণ মানুষ এতি খেলে উপকৃত হবে কিন্তু Auto-immune disease এর রোগীদের খাওয়া উচিত না। জিনসেং মেয়েলি হরমোন ইস্ট্রোজেন এর পরিমাণ বাড়ায়, তাই যাদের হরমোনের সমস্যা আছে তাদের এটা খাওয়া উচিত কিন্তু যাদের ব্রেস্ট, জরায়ু বা ডিম্বাশয়ে ক্যান্সার আছে তাদের খাওয়া উচিত নয় কারণ অতিরিক্ত ইস্ট্রোজেন এইসব ক্যান্সারে আরো সহায়ক ভূমিকা রাখে। জিনসেং ব্লাড প্রেশারেও তারতম্য ঘটায় তাই হাই ও লো প্রেশারের রোগীদেরো নিয়মিত খাওয়া উচিত না। সোজা ভাষায় বলতে গেলে, জিনসেং এর ভালো গুনগুলোর কারণেই আসলে একে সতর্ক ভাবে গ্রহণ করা উচিত (যদিও উপরের আশংকা গুলো কোনটাই বৈজ্ঞানিক ভাবে প্রমাণিত না)।

তথ্য এবং ছবি : গুগল                                   Ginseng

Proven Health Benefits of Ginseng
Ginseng has been used in traditional Chinese medicine for centuries.
This slow-growing, short plant with fleshy roots can be classified three ways, depending on how long it is grown: fresh, white or red.
Fresh ginseng is harvested before 4 years, while white ginseng is harvested between 4–6 years and red ginseng is harvested after 6 or more years.
There are many types of this herb, but the most popular are American ginseng (Panax quinquefolius) and Asian ginseng (Panax ginseng).
American and Asian ginseng vary in their concentration of active compounds and effects on the body. It is believed that American ginseng works as a relaxing agent, whereas the Asian variety has an invigorating effect (1Trusted Source, 2Trusted Source).
Ginseng contains two significant compounds: ginsenosides and gintonin. These compounds complement one another to provide health benefits (3Trusted Source).
Here are 7 evidence-based health benefits of ginseng.
CRIBE
NUTRITION
7 Proven Health Benefits of Ginseng
If you buy something through a link on this page, we may earn a small commission. How this works.
Ginseng has been used in traditional Chinese medicine for centuries.
This slow-growing, short plant with fleshy roots can be classified three ways, depending on how long it is grown: fresh, white or red.
Fresh ginseng is harvested before 4 years, while white ginseng is harvested between 4–6 years and red ginseng is harvested after 6 or more years.
There are many types of this herb, but the most popular are American ginseng (Panax quinquefolius) and Asian ginseng (Panax ginseng).
American and Asian ginseng vary in their concentration of active compounds and effects on the body. It is believed that American ginseng works as a relaxing agent, whereas the Asian variety has an invigorating effect (1Trusted Source, 2Trusted Source).
Ginseng contains two significant compounds: ginsenosides and gintonin. These compounds complement one another to provide health benefits (3Trusted Source).
Here are 7 evidence-based health benefits of ginseng.
1. Potent Antioxidant That May Reduce Inflammation
Ginseng has beneficial antioxidant and anti-inflammatory properties (4Trusted Source).
Some test-tube studies have shown that ginseng extracts and ginsenoside compounds could inhibit inflammation and increase antioxidant capacity in cells (5Trusted Source, 6Trusted Source).
For example, one test-tube study found that Korean red ginseng extract reduced inflammation and improved antioxidant activity is skin cells from people with eczema (7Trusted Source).
The results are promising in humans, as well.
One study investigated the effects of having 18 young male athletes take 2 grams of Korean red ginseng extract three times per day for seven days.
The men then had levels of certain inflammatory markers tested after performing an exercise test. These levels were significantly lower than in the placebo group, lasting for up to 72 hours after testing (8Trusted Source).
However, it should be noted that the placebo group got a different medicinal herb, so these results should be taken with a grain of salt and more studies are needed.
Lastly, a larger study followed 71 postmenopausal women who took 3 grams of red ginseng or a placebo daily for 12 weeks. Antioxidant activity and oxidative stress markers were then measured.
Researchers concluded that red ginseng may help reduce oxidative stress by increasing antioxidant enzyme activities (9Trusted Source).
2. May Benefit Brain Function
Ginseng could help improve brain functions like memory, behavior and mood (10Trusted Source, 11Trusted Source).
Some test-tube and animal studies show that components in ginseng, like ginsenosides and compound K, could protect the brain against damage caused by free radicals (12Trusted Source, 13Trusted Source, 14Trusted Source).
One study followed 30 healthy people who consumed 200 mg of Panax ginseng daily for four weeks. At the end of the study, they showed improvement in mental health, social functioning and mood.
However, these benefits stopped being significant after 8 weeks, suggesting that ginseng effects might decrease with extended use (15Trusted Source).
Another study examined how single doses of either 200 or 400 mg of Panax ginseng affected mental performance, mental fatigue and blood sugar levels in 30 healthy adults before and after a 10-minute mental test.
The 200-mg dose, as opposed to the 400-mg dose, was more effective at improving mental performance and fatigue during the test (16Trusted Source).
It is possible that ginseng assisted the uptake of blood sugar by cells, which could have enhanced performance and reduced mental fatigue. Yet it is not clear why the lower dose was more effective than the higher one.
A third study found that taking 400 mg of Panax ginseng daily for eight days improved calmness and math skills (17Trusted Source).
What’s more, other studies found positive effects on brain function and behavior in people with Alzheimer's disease (18Trusted Source, 19Trusted Source, 20Trusted Source).
3. Could Improve Erectile Dysfunction
Research has shown that ginseng may be a useful alternative for the treatment of erectile dysfunction (ED) in men (21Trusted Source, 22Trusted Source).
It seems that compounds in it may protect against oxidative stress in blood vessels and tissues in the penis and help restore normal function (23Trusted Source, 24Trusted Source).
Additionally, studies have shown that ginseng may promote the production of nitric oxide, a compound that improves muscle relaxation in the penis and increases blood circulation (24Trusted Source, 25Trusted Source).
One study found that men treated with Korean red ginseng had a 60% improvement in ED symptoms, compared to 30% improvement produced by a medication used to treat ED (26Trusted Source).
Moreover, another study showed that 86 men with ED had significant improvements in erectile function and overall satisfaction after taking 1,000 mg of aged ginseng extract for 8 weeks (27Trusted Source).
However, more studies are needed to draw definite conclusions about the effects of ginseng on ED (24Trusted Source).
4. May Boost the Immune System
Ginseng may strengthen the immune system.
Some studies exploring its effects on the immune system have focused on cancer patients undergoing surgery or chemotherapy treatment.
One study followed 39 people who were recovering from surgery for stomach cancer, treating them with 5,400 mg of ginseng daily for two years.
Interestingly, these people had significant improvements in immune functions and a lower recurrence of symptoms (28).
Another study examined the effect of red ginseng extract on immune system markers in people with advanced stomach cancer undergoing post-surgery chemotherapy.
After three months, those taking red ginseng extract had better immune system markers than those in the control or placebo group (29).
Furthermore, a study suggested that people who take ginseng could have up to a 35% higher chance of living disease-free for five years after curative surgery and up to a 38% higher survival rate compared to those not taking it (30).
It seems that ginseng extract could enhance the effect of vaccinations against diseases like influenza, as well (31Trusted Source).
Even though these studies show improvements in immune system markers in people with cancer, more research is needed to demonstrate the efficacy of ginseng in boosting resistance to infections in healthy people (32Trusted Source).
5. May Have Potential Benefits Against Cancer
Ginseng may be helpful in reducing the risk of certain cancers (33Trusted Source).
Ginsenosides in this herb have been shown to help reduce inflammation and provide antioxidant protection (34Trusted Source, 35Trusted Source).
The cell cycle is the process by which cells normally grow and divide. Ginsenosides could benefit this cycle by preventing abnormal cell production and growth (34Trusted Source, 35Trusted Source).
A review of several studies concluded that people who take ginseng may have a a 16% lower risk of developing cancer (35Trusted Source).
Moreover, an observational study suggested that people taking ginseng could be less likely to develop certain types of cancer, such as lip, mouth, esophagus, stomach, colon, liver and lung cancer, than those who do not take it (36Trusted Source).
Ginseng may also help improve the health of patients undergoing chemotherapy, reduce side effects and enhance the effect of some treatment drugs (34Trusted Source).
While studies on the role of ginseng in cancer prevention show some benefits, they remain inconclusive (37Trusted Source).
6. May Fight Tiredness and Increase Energy Levels
Ginseng has been shown to help fight fatigue and promote energy.
Various animal studies have linked some components in ginseng, like polysaccharides and oligopeptides, with lower oxidative stress and higher energy production in cells, which could help fight fatigue (38Trusted Source, 39Trusted Source, 40Trusted Source).
One four-week study explored the effects of giving 1 or 2 grams of Panax ginseng or a placebo to 90 people with chronic fatigue.
Those given Panax ginseng experienced less physical and mental fatigue, as well as reductions in oxidative stress, than those taking the placebo (41Trusted Source).
Another study gave 364 cancer survivors experiencing fatigue 2,000 mg of American ginseng or a placebo. After eight weeks, those in the ginseng group had significantly lower fatigue levels than those in the placebo group (42Trusted Source).
Furthermore, a review of over 155 studies suggested that ginseng supplements may not only help reduce fatigue but also enhance physical activity (43Trusted Source).
7. Could Lower Blood Sugar
Ginseng seems to be beneficial in the control of blood glucose in people both with and without diabetes (44Trusted Source, 45Trusted Source).
American and Asian ginseng have been shown to improve pancreatic cell function, boost insulin production and enhance the uptake of blood sugar in tissues (44Trusted Source).
Moreover, studies show that ginseng extracts help by providing antioxidant protection that reduce free radicals in the cells of those with diabetes (44Trusted Source).
One study assessed the effects of 6 grams of Korean red ginseng, along with the usual anti-diabetic medication or diet, in 19 people with type 2 diabetes.
Interestingly, they were able to maintain good blood sugar control throughout the 12-week study. They also had an 11% decrease in blood sugar levels, a 38% decrease in fasting insulin and a 33% increase in insulin sensitivity (46Trusted Source).
Another study showed that American ginseng helped improve blood sugar levels in 10 healthy people after they performed a sugary drink test (47Trusted Source).
It seems that fermented red ginseng could be even more effective at blood sugar control. Fermented ginseng is produced with the help of live bacteria that transform the ginsenosides into a more easily absorbed and potent form (48Trusted Source).
In fact, a study demonstrated that taking 2.7 grams of fermented red ginseng daily was effective at lowering blood sugar and increasing insulin levels after a test meal, compared to a placebo (49Trusted Source).
Newer Posts Newer Posts Older Posts Older Posts

2 comments

  1. Did you check my new article about nutrition of apple .I hope you will love it :)

    ReplyDelete
  2. We manufacture carbonyl iron capsules which consists of folic acid, vitamin b12, selenium, vitamin e acetate
    carbonyl iron capsules

    ReplyDelete