Watermelon/তরমুজ, Health Benefits of Eating Watermelon/তরমুজ এর গুণাগুণ


Watermelon is a delicious and refreshing fruit that's also good for you.
It contains only 46 calories per cup but is high in vitamin C, vitamin A and many healthy plant compounds.
1. Helps You Hydrate
Drinking water is an important way to keep your body hydrated.
However, eating foods that have a high water content can also help. Interestingly, watermelon is 92% water.
What’s more, a high water content is one of the reasons why fruits and vegetables help you feel full.
The combination of water and fiber means you're eating a good volume of food without a lot of calories.
2. Contains Nutrients and Beneficial Plant Compounds
As far as fruits go, watermelon is one of the lowest in calories — only 46 calories per cup (154 grams). That's lower than even low-sugar fruits such as berries.
One cup (154 grams) of watermelon has many other nutrients as well, including these vitamins and minerals:
Vitamin C: 21% of the Reference Daily Intake (RDI)
Vitamin A: 18% of the RDI
Potassium: 5% of the RDI
Magnesium: 4% of the RDI
Vitamins B1, B5 and B6: 3% of the RDI
Watermelon is also high in carotenoids, including beta-carotene and lycopene. Plus, it has citrulline, an important amino acid.
Here's an overview of watermelon's most important antioxidants:
Vitamin C
Vitamin C is an antioxidant that helps prevent cell damage from free radicals.
Carotenoids
Carotenoids are a class of plant compounds that includes alpha-carotene and beta-carotene, which your body converts to vitamin A.
Lycopene
Lycopene is a type of carotenoid that doesn't change into vitamin A. This potent antioxidant gives a red color to plant foods such as tomatoes and watermelon and is linked to many health benefits.
Cucurbitacin E
Cucurbitacin E is a plant compound with antioxidant and anti-inflammatory effects. Bitter melon, a relative of watermelon, contains even more cucurbitacin E.
3. Contains Compounds That May Help Prevent Cancer
Researchers have studied lycopene and other individual plant compounds in watermelon for their anti-cancer effects.
Though lycopene intake is associated with a lower risk of some types of cancer, study results are mixed. The strongest link so far seems to be between lycopene and cancers of the digestive system .
It appears to reduce cancer risk by lowering insulin-like growth factor (IGF), a protein involved in cell division. High IGF levels are linked to cancer .
In addition, cucurbitacin E has been investigated for its ability to inhibit tumor growth .
4. May Improve Heart Health
Heart disease is the number one cause of death worldwide.
Lifestyle factors, including diet, may lower your risk of heart attack and stroke by reducing blood pressure and cholesterol levels.
Several nutrients in watermelon have specific benefits for heart health.
Studies suggest that lycopene may help lower cholesterol and blood pressure. It can also help prevent oxidative damage to cholesterol .
According to studies in obese, postmenopausal women and Finnish men, lycopene may also reduce the stiffness and thickness of artery walls.
Watermelon also contains citrulline, an amino acid that may increase nitric oxide levels in the body. Nitric oxide helps your blood vessels expand, which lowers blood pressure .
Other vitamins and minerals in watermelon are also good for your heart. These include vitamins A, B6, C, magnesium and potassium .
5. May Lower Inflammation and Oxidative Stress
Inflammation is a key driver of many chronic diseases.
Watermelon may help lower inflammation and oxidative damage, as it's rich in the anti-inflammatory antioxidants lycopene and vitamin C .
In a 2015 study, lab rats were fed watermelon powder to supplement an unhealthy diet. Compared to the control group, they developed lower levels of the inflammatory marker C-reactive protein and less oxidative stress.
In an earlier study, humans were given lycopene-rich tomato juice with added vitamin C. Overall, their markers of inflammation went down and antioxidants went up. Watermelon has both lycopene and vitamin C .
As an antioxidant, lycopene may also benefit brain health. For example, it may help delay the onset and progression of Alzheimer's disease .
6. May Help Prevent Macular Degeneration
Lycopene is found in several parts of the eye where it helps protect against oxidative damage and inflammation.
It may also prevent age-related macular degeneration (AMD). This is a common eye problem that can cause blindness in older adults.
Lycopene's role as an antioxidant and anti-inflammatory compound may help prevent AMD from developing and getting worse.
For more information on how to keep your eyes healthy, consider reading The 9 Most Important Vitamins for Eye Health.
7. May Help Relieve Muscle Soreness
Citrulline, an amino acid in watermelon, may reduce muscle soreness. It’s also available as a supplement.
Interestingly, watermelon juice appears to enhance the absorption of citrulline.
One small study gave athletes plain watermelon juice, watermelon juice mixed with citrulline or a citrulline drink. Both watermelon drinks led to less muscle soreness and quicker heart rate recovery, compared to citrulline on its own .
The researchers also conducted a test-tube experiment, investigating the absorption of citrulline. Their findings suggest that citrulline absorption is most effective when it's consumed as a component of watermelon juice.
Other research has also looked at citrulline's potential to improve exercise endurance and performance.
So far, citrulline doesn't seem to improve exercise performance in the amounts studied, but it's still an area of research interest.
8. Is Good for Skin and Hair
Two vitamins in watermelon — A and C — are important for skin and hair health.
Vitamin C helps your body make collagen, a protein that keeps your skin supple and your hair strong.
Vitamin A is also important for healthy skin since it helps create and repair skin cells. Without enough vitamin A, your skin can look dry and flaky.
Both lycopene and beta-carotene may also help protect your skin from sunburn .
9. Can Improve Digestion
Watermelon contains lots of water and a small amount of fiber — both of which are important for healthy digestion.
Fiber can provide bulk for your stool, while water helps keep your digestive tract moving efficiently.
Eating water-rich and fiber-rich fruits and vegetables, including watermelon, can be very helpful for promoting normal bowel movements.
তরমুজ
বাজার দর অনুযায়ী মূল্য পরিবর্তনশীল এবং ষ্টক থাকা সাপেক্ষে।
সকল পণ্য হালাল রুপে বাছাই করে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে ধুয়ে রোদে শুকিয়ে বাজারজাত করা হয়।
বনাজী ঔষধালয়ে নুতন পণ্যের অর্ডার বিবরনমূল্য জানতে ফেসবুক     
পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন, share করে সহযোগিতা করুন প্লিজ।
ভেষজ গাছ গাছড়ার গুনাগুণ  উপকারিতা জানতে ভিজিট করুন এবং  subscribe করুন। ধন্যবাদ।
Please subscribe/like/follow for next posts, Thanks.
গ্রীষ্মকালে যেসব ফল আমাদের স্বাস্থ্য রক্ষায় বিশেষ ভূমিকা পালন করে তার মধ্যে তরমুজ একটি উল্লেখযোগ্য ফল। এ ফলটি একটি মৌসুমী ফল। ফলটির বাহিরে সবুজ, ভেতরে লাল আর বীজগুলি কালো চ্যাপ্টা। তরমুজ বাংলাদেশের প্রায় সব জেলাতেই প্রচুর পরিমাণে জন্মে চৈত্র ও বৈশাখ মাসে খুব বেশী পাওয়া যায়। তরমুজের মন কাড়া রং আর রসাল মিষ্টি স্বাদের জন্য সবার কাছে এ ফলটি অত্যান্ত প্রিয়। গরমের সময় তরমুজ আহারে দেহমনে প্রশান্তি আনে। শুধু তাই নয় পুষ্টি গুনে ভরা তরমুজ দেহের পুষ্টি চাহিদা দ্রæত পূরণ করে নেয়। তরমুজে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও খনিজ উপাদান। যা আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তুলে। তাই সকলে মৌসুমী এ ফলটি খাওয়া উচিত। 
রাসায়নিক উপাদান ঃ তরমুজের ফুলে থাকে মুক্ত অ্যামাইনো এসিড, আরজিনিন, গøাইসিন, থ্রিওনিন, লাইসিন, অ্যালানিন, অ্যাসপারজিন, গøুটামিক এসিড ও লিউসিন। ফলে থাকে ফলিক, ফেরালিক ক্যাফিক ও ক্লোরোজেনিক এসিড, কিউকারবিটাসিন, সাইটুলিন, কিউফারটিন ইত্যাদি।
পুষ্টি উপাদান ঃ পুষ্টিবিদদের মতে প্রতি ১০০ গ্রাম তরতাজা তরমুজে খাদ্য উপাদান হলো ঃ জলীয় অংশ ৯৫.৮ গ্রাম, আমিষ ০.৫ গ্রাম, আঁশ ০.২ গ্রাম, চর্বি ০.২ গ্রাম, শ্বেসার ৬.৫ গ্রাম, ভিটামিন এ ৫৬৯ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ৬ মিলিগ্রাম, খাদ্যশক্তি ১৬ মিলিগ্রাম, শর্করা ৩.৩ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ১১ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ১২ মিলিগ্রাম, নিয়াসিন ০.১৫ গ্রাম, লৌহ ৭.৯ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি১ ০.০৩ মিলিগ্রাম, বি২ ০.০৪ মিলিগ্রাম।
উপকারিতা ঃ তরমুজ পুষ্টি গুণে ভরা একটি ফল। ভিটামিন অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ভালো উৎস তরমজু। তরমুজের প্রায় ৯৬ শতাংশই পানি। তাই প্রচন্ড গরমে শরীরে পানির চাহিদা পূরণে এবং শরীর ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করে তরমুজ। যারা গরমে কাজ করে বা বেশী ঘাম হয় তাদের নিয়মিত তরমুজ খাওয়া দরকার। এতে শরীর তাড়াতাড়ি দুর্বল হয় না। তরমুজে যে পটাশিয়াম থাকে তা মানব দেহে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। হৃদপিন্ডের সুস্থতা রক্ষা করে। পুষ্টিবিদদের মতে তরমুজ মানব দেহের হৃদরোগ, হাঁপানী, মস্তিস্কে রক্তক্ষরণ (স্ট্রোক) রোগ ও ক্যান্সার প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে। আমাদের মস্তিষ্কের ¯œায়ুকোষগুলোকে সঠিক এবং সুস্থ রাখে। তাজা তরমুজে লাইকোপিন, বিটা-ক্যারোটিন, লুটেইন, জিয়াজেস্থিন, ক্রিপ্টোজেস্থিন উপাদান থাকে। এসব ফ্লেভনয়েডস অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে দেহের ক্যান্সার কোষ বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে। ফলে পাকস্থলি, ফুসফুস, স্তন, প্রোস্টেট, জরায়ু ইত্যাদির ক্যান্সারের প্রবণতা কমে যায়। তরমুজে লাইকোপেন উপাদানটি সূর্যের আলোর বেগুনি রশ্মির হাত থেকে আমাদের চামড়াকে রক্ষা করে। তরমুজ দেহে চর্বি জমা হওয়ার ব্যবস্থা কমিয়ে দেয়। ফলে হার্ট অ্যাটাক হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। তরমুজে বিটা ক্যারোটিন ও ম্যাগানিজ থাকে। যা চামড়ার রোগ প্রতিরোধ ও মসৃণ করে। তরমুজে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি পাওয়া যায়। ভিটামিন সি মানবদেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং সুষ্ঠু রক্ত সঞ্চালনে সাহায্য করে, দাঁতের সমস্যা, চামড়ার সৌন্দর্য, মুখের ঘাঁ, সর্দি, গরম ও ঠান্ডা জ্বর প্রতিরোধে বেশ উপকার করে। তরমুজ অত্যান্ত রসালো ফল বলে মানব দেহের বৃক্ক বা কিডনীর জন্য খুবই উপকারী। তরমুজে পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, রক্তের ইনসুলিনকে সুষ্ঠুভাবে কাজ করতে সাহায্য করে। পুষ্টিবিদদের মতে ডায়াবেটিস রোগীরা তরমুজ খেতে পারবেন। তবে নিজ নিজ চিকিৎসকের পরামর্শ মতে। তরমুজের আঁশ ও পানি কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। তরমুজের পটাশিয়াম মানব দেহের হাঁড়ের গঠন শক্ত ও মজবুত করে। তাছাড়া দেহের ক্যালসিয়াম ধরে রাখতে সাহায্য করে। হাঁড়ের জোড়াগুলোকে মজবুত করে। তরমুজে থাকে বিটা ক্যারোটিন। যে কারণে তরমুজের শাঁস লাল হয়। এ উপাদানটি চোখের নানা সমস্যা দূর করে। চোখকে সুস্থ সবল রাখে। চোখের দৃষ্টি শক্তি প্রখর রাখে। তরমুজে প্রাকৃতিক ভাবে অতি অল্প পরিমাণে চর্বি থাকে। তাই পেট ভরে তরমুজ খেলেও ওজন বাড়ে না। তরমুজ খেলে অ্যাক্সিডেটিভ স্টেসজনিত অসুস্থতা কমে যায়। তরমুজে সিট্রোলিন নামক বিশেষ অ্যামাইনো এসিডের উপাদান রয়েছে। যা মানব দেহের পুরুষের শুক্রাণু ও মহিলাদের ডিম্বানুকে পরিপুষ্ট করে। যৌনশক্তি বৃদ্ধি করে। তাই যাদের যৌন ক্ষমতা কম তারা নিয়মিত তরমুজ খান বেশ উপকার পাবেন। এটি প্রাকৃতিক ঔষধ হিসাবে কাজ করে। তার এই উপাদান কিডনীর জন্য অত্যান্ত উপকারী এবং কিডনীতে পাথর জমতে দেয় না ফলে কিডনী সুস্থ এবং সবল থাকে। তরমুজে সিলিকা উপাদান থাকে যা নোখের সমস্যা ও ভঙ্গুরতা কমায় এবং সৌন্দর্যতা বৃদ্ধি করে। তরমুজে অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি বা প্রদাহ নিরোধী হিসেবে ভালো কাজ করে তাই শরীরে প্রদাহ জনিত ব্যাথা কমতে সাহায্য করে যেমন বাতের ব্যাথা।
ঔষধী গুণ  
*গরমে যারা বেশী ঘামেন তারা প্রচুর পরিমাণে তরমুজ খান। শরীর ঠান্ডা হবে শরীরে পানির অভাব পূরণ হবে এবং শরীর দুর্বল হবে না। 
*যাদের পায়খানা কম হয় বা শক্ত হয় তারা নিয়মিত তরমুজ খান বেশ উপকার পাবেন। 
*যারা ঘন ঘন সর্দি বা ঠান্ডায় আক্রান্ত হন তারা তরমুজ খান উপকার পাবেন। 
*যাদের টাইফয়েড জ্বর তারা তরমুজ বা তরমুজের রস বা তরমুজের শরবত খান জ্বরের তীব্রতা কমে আসবে। 
*যাদের প্রস্রাবে  জ্বালা পোড়া করে বা প্রস্রাব কম হয় তারা নিয়মিত তরমুজ খান উপকার পাবেন। 
*যারা রোগা রোগা শরীরে রক্ত কম, সামান্য কাজ করলে শরীর হাফিয়ে উঠে তারা নিয়মিত তরমুজ খান বেশ উপকার পাবেন। 
*যেসব মহিলার মাসিকের পর শরীর বেশী দুর্বল হয়ে যায় তারা সকাল বিকাল তরমুজ খান শরীরে রক্ত তৈরি হবে দুর্বলতা কমে আসবে। 
*যাদের মুখে মেসতা বা ছোপ ছোপ কালছে দাগ আছে তাদের লিবারে সমস্যায় এমন দেখা দেয়। তারা নিয়মিত তরমুজ খান সমস্যা কমে আসবে। 
*যারা উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন তারা নিয়মিত তরমুজ খান রক্তের চাপ কমে আসবে। কারণ তরমুজের পটাশিয়াম উচ্চ রক্ত চাপ কমিয়ে দেয়। 
*যাদের হৃদপিন্ডে সমস্যা বা হৃদরোগ আছে বা যাদের বুক ধড়ফড় করে তারা নিয়মিত তরমুজ খান উপকার পাবেন। তরমুজের সাইট্রলিন হৃদরোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে এবং রক্ত সঞ্চালন ভালো হয়। 
* চামড়ার সৌন্দর্য এবং তারুণ্য ধরে রাখতে তরমুজ বেশ উপকারী।
সতর্কতা:  
রাস্তার মোড়ে মোড়ে বা বাজারে খোলা অবস্থায় রাখা কাটা তরমুজ খাবেন না। তরমুজ কেটে ফ্রিজে ভরে রাখবেন না। এতে খাদ্য উপাদান কমে যায়। যেকোন ফল কেটে খোলা অবস্থায় রাখবেন না। এতে ভিটামিন সি নষ্ট হয়ে যায়। তরমুজে শাঁস অধিক লাল করার জন্য অসাধু ব্যবসায়ীরা কৃত্রিম রং ভিতরে প্রবেশ করিয়ে থাকে এমন তরমুজ কিনবেন না খাবেন না। তরমুজ কাটার পর শাঁস হাতে লাগলে কিছু রং হাতে লাগে এ তরমুজটি খাবেন না। তরমুজ কেনার সময় দেখে নিবেন যেন তরমুজ তাজা এবং পাকা হয়। পাকা তরমুজের ওজন তার আকারের চেয়ে বেশী হয় এবং ঠনঠন শব্দ করে। তরমুজের যে অংশে মাঠির স্পর্শে থাকে সে অংশ সাদা বা সবুজ হলে বুঝবেন তরমুজটি পাকা নয়। কিন্তু হলদে হলে পাকা ও পরিপক্ক। দেশীয় ফল খান সুস্থ থাকুন।
যষ্ঠিমধু গুড়া, কালিজিরা ১নং তৈল আস্ত/গুড়া পাওয়া যাচ্ছে।
মরিয়ম ফুল, চন্দন গুড়া, রিঠা পাউডার, শিকাকাই, মুলতানি মাটি, ত্রিফলা,
             জটামানসী, পুনর্ণবা, ত্বীন ফল, পিংক সল্ট, ব্রাঊন সুগার. কেশুরী মেথি, কারি পাতাসহ দুষ্প্রাপ্য ভেষজ এবং
আজওয়া, আনবারা, মরিয়ম, মসরুখ ও নাগাল।
পোলাও ও সিদ্ধ চালের খুদ, চালের গুড়া পাওয়া যাচ্ছে।
                    যাবতীয় বাদাম মসলা আস্ত/গুড়ার জন্য পরিদর্শন করুন
          গাওয়া ঘি, মধু সরিষার তৈল! ভেজালে মূল্য ফেরত
         বনাজী ভেষজালয়
      বাড়ী#২৮,  রোড#,  ব্লক#এফ,  বনশ্রী, ঢাকা
             ফোন: ০১৬২০১২০৮১৭








Newer Posts Newer Posts Older Posts Older Posts

Comments

Post a Comment