Vinegar/ভিনেগার বা সিরকা, Surprising Vinegar Benefits + Side Effects /ভিনেগার লাগে কত কাজে


Vinegar has been used for wounds and other ailments since the time of Hippocrates, but is there evidence to back up these uses? Read on for more about the potential health benefits of vinegar.
What is Vinegar?
Historically, vinegar has been used as a preservative or as an acid for cooking. Like some of the other foods we love, such as cheese, yogurt, and wine, vinegar is also made with the help of microorganisms that ferment sugars and convert them into acetic acid.
Vinegar is a liquid consisting of about 5 to 20 percent acetic acid, water, trace elements, and, in some cases, flavorings. It has been used as a treatment for many different ailments since the time of Hippocrates, around 420 B.C..
Diluted acetic acid by itself is not considered vinegar because vinegar contains other minerals, vitamins, and amino acids. Other bioactive products in vinegar include gallic acid, catechin, epicatechin, and caffeic acid.
Types of Vinegar
Vinegar is made from different fruits, rice, barley, and other foods that are high in sugar. Some examples are rice wine vinegar, apple cider vinegar, white distilled vinegar, balsamic vinegar, and fruit vinegar. Depending on the type, they can have different levels of acidity.
Different vinegar types are more popular in different countries and areas of the world. The one common theme amongst all vinegar is its beneficial properties and antioxidants.
How Vinegar Works
Vinegar is made by the fermentation process involving the yeast, Saccharomyces cerevisiae, and Acetobacter bacteria.
For antihypertensive effects, the proposed mechanism is that acetic acid acts directly on renin activity, which causes a decrease in Angiotensin II. This subsequently reduces blood pressure.
The method through which vinegar improves glycemic levels is not fully known. However, researchers believe the mechanism occurs after the translation of sucrase/lactase/maltase enzyme complexes.
The acetic acid in vinegar reduces blood sugar content by activating AMPK, an enzyme.
Vinegar is thought to affect glucose levels by delaying the rate of gastric emptying. The acetic acid in vinegar also seems to suppress disaccharidase activity and increase glucose-6-phosphate levels in skeletal muscle. Therefore, it is thought that vinegar may also prevent carbohydrate breakdown, similar to the prescription drug acarbose (Precose).
Potential Health Benefits (Possibly Effective)
While the benefits in this section have multiple clinical trials behind them, it’s important to note that the FDA has not approved any vinegar product for any medical purpose or health claim. Vinegar is a safe component of many foods, but we still recommend talking to your doctor before using vinegar as a supplement.
1) Blood Glucose
In insulin-resistant subjects, vinegar improved post-meal insulin sensitivity by 34 percent. In patients with type II diabetes, insulin sensitivity improved by 19 percent.
In another study of eleven healthy adults, the addition of vinegar to a high-glycemic meal significantly reduced post-meal blood sugar.
Two tablespoons of apple cider vinegar at bedtime helped to reduce fasting blood glucose levels in eleven patients with type II diabetes.
In rats, blood glucose levels were significantly reduced when vinegar was fed in conjunction with corn starch. In humans, the results were not as pronounced. However, the area under the insulin response curve was reduced by 20 percent after the subject was administered 50 g of sucrose and 60 mL of vinegar.
In theory, vinegar could be a potential treatment to slow the progression of diabetes. In a cell study, vinegar increased insulin-stimulated glucose uptake, allowing insulin to do its job better and enhancing carbohydrate metabolism.
Additional human trials will be required to determine whether vinegar can really help control blood sugar, especially in diabetic patients.
2) Antimicrobial Activity
Diluted vinegar (2 percent acetic acid solution at a pH of 2) can effectively treat ear infections, including otitis externa, otitis media, and granular myringitis [9, 10].
Bacterial
Vinegar is slightly effective at inhibiting the growth of Staphylococcus aureus and Pseudomonas aeruginosa on wounds as a surface cleaning solution. However, many experts advise against using vinegar to clean a wound because the acidic solution may do more harm than good to the injured tissue.
In the context of killing microbes, vinegar may be most useful for cleaning vegetables before food preparation.
Viral
Vinegar is used in remote, poorly sourced locations as a mechanism for screening women for Human Papillomavirus (HPV) infection.
When the acetic acid in vinegar comes in contact with the viral lesions associated with HPV, it alters them, allowing midwives to detect infection with 77 percent sensitivity.
A preliminary study suggests that local excision plus a brief application of 99 percent acetic acid with rapid neutralization with sterile water under local anesthesia was effective in treating multiple genital warts in women with an acceptable rate of recurrence of 13.3 percent.
These treatments are used in remote locations with poor access to conventional healthcare. Better and more reliable treatments are available at medical facilities across North America, Europe, and many other parts of the world. Do not, under any circumstances, attempt to treat genital warts with vinegar.
Yeast Infections
Vinegar may help fight candida vulvovaginitis and oral candidiasis.
Some people use vinegar to suppress lice, nail fungus, and warts. However, very little evidence supports these uses, and more effective treatments are available. Do not attempt to treat these conditions with vinegar .
Potential Benefits (Insufficient Evidence)
The benefits in this section have been observed in at least one clinical study, but the results have yet to be reliably repeated. Again, the FDA has not approved vinegar for any medical purpose or health claim. If you want to use vinegar as a complement to other, better-studied strategies, talk to your doctor to determine whether it could be appropriate.
3) Weight Management
Vinegar (apple cider vinegar) may increase feelings of satiety, indicating its potential usefulness in weight control. Satiety is a feeling of fullness and satisfaction: the opposite of hunger.
In a double-blind clinical study, vinegar intake reduced body weight, body fat mass, and serum triglyceride levels in obese Japanese subjects. A daily intake of vinegar, therefore, may be helpful in the prevention of metabolic syndrome by reducing obesity .
According to one study in animals, cider vinegar induced a significant reduction in weight gain.
It also helped increase serum HDL levels and decreased triglycerides and LDL levels in diabetic rats.
In mice, acetic acid also prevented body fat and liver lipid accumulation, possibly by up-regulating the expression of genes that are involved in burning fats for energy.
4) Heart Health
The acetic acid in vinegar significantly reduced blood pressure and renin activity (associated with blood pressure) in hypertensive rats.
Studies have also reported that vinegar administration inhibited the renin-angiotensin system (hormone system) in non-hypertensive rats.
Trials investigating the effects of vinegar ingestion on the renin-angiotensin system have not been conducted in humans, and there is no scientific evidence that vinegar ingestion alters blood pressure in humans. More research is required to determine whether vinegar really has a significant effect on reducing blood pressure.
Animal Studies (Lacking Evidence)
No clinical evidence supports the use of vinegar for any of the conditions listed in this section. Below is a summary of the existing animal and cell-based research, which should guide further investigational efforts. However, the studies listed below should not be interpreted as supportive of any health benefit.
We recommend talking to your doctor about other, better-studied options to achieve the health goals discussed in this section.
5) Antioxidant Activity
Vinegar is a source of dietary polyphenols, which are antioxidants and defend against oxidative stress.
For example, kurosu, a traditional vinegar produced from unpolished rice, suppressed lipid peroxidation in mice treated topically with hydrogen peroxide-generating chemicals.
Animal and cell experiments have also indicated that both grain and fruit vinegar could potentially improve antioxidant capacities and reduce oxidative damage.
Apple cider vinegar induced a protective effect against erythrocyte, kidney, and liver oxidative injury and lowered the serum lipid levels in mice fed a high cholesterol diet. The authors suggested that it may scavenge free radicals, inhibit lipid peroxidation, and increase the levels of antioxidant enzymes and vitamins in cells.
6) Cholesterol
Rats that were fed apple cider vinegar for 19 days had a drastic reduction in total cholesterol and triglyceride levels.
An antioxidant called chlorogenic acid in vinegar can prevent LDL cholesterol particles from becoming oxidized, helping to lower LDL levels and cholesterol.
In animals, apple cider vinegar significantly reduces hemoglobin A1C (HbA1C), lowers low-density lipoprotein (LDL) cholesterol and triglycerides, and increases high-density lipoprotein (HDL) cholesterol. In another animal model, apple cider vinegar decreased triglycerides and very-low-density lipoprotein (VLDL) cholesterol.
7) Digestion
Vinegar may modulate acid/alkaline balance and promote the growth of healthy bacteria in the stomach. In animals, the ingestion of vinegar increased the quantity of minerals and vitamins absorbed from food, possibly because several vitamins and minerals are better absorbed at lower pH (higher acidity).
8) Cognitive Decline
Kurozu, a traditional rice wine vinegar, shows a tendency to suppress cognitive dysfunction and amyloid accumulation in mice. This particular study found that vinegar might help the production of proteins like HspA1A, a protein similar to HSP70, which helps reduce amyloid formation in the brain.
A Japanese study found that vinegar consumption might improve cognitive function in rat models of Alzheimer’s disease and other dementias .
A case-control study demonstrated that vinegar ingestion was associated with decreased rates of esophageal cancer.
An extract from Japanese rice vinegar containing ethyl acetate inhibited azoxymethane-induced colon carcinogenesis in male rats in comparison to control rats. After 40 days, the rats had significantly smaller tumor volumes, as well as longer lifespans .
Rice shochu vinegar also stimulated cytotoxic activity (toxicity) in natural killer cells and stopped tumor growth in mice.
A mouse model vinegar produced from RSDS (rice-shochu post distillation slurry) stimulated natural killer cell cytotoxic activity against human leukemia cell lines.
Certain types of vinegar are also being investigated for their potential against leukemia, colon, lung, breast, bladder, and prostate cancer cells.
Side Effects & Precautions
Although vinegar’s use is considered safe by default, there are rare reports of literature regarding adverse reactions to vinegar ingestion [.
According to one case-control study in Serbia, vinegar ingestion was associated with a 4.4-fold greater risk for bladder cancer.
Hypokalemia (low levels of potassium in the blood) was observed in a 28-year old woman who had reportedly consumed approximately 250ml of apple cider vinegar daily for six years.
Apple cider vinegar might lower blood sugar levels in people with diabetes. Therefore, blood sugar levels need to be monitored closely. Talk to your doctor before using vinegar as a supplement if you have diabetes.
Although vinegar is able to treat many infections, there are usually other more effective options. We recommend strongly against attempting to use vinegar to treat any medical condition.
প্রতি বোতল ছোট  ৬৫/- বড় ৯৫/-

বাজার দর অনুযায়ী দ্রব্যমূল্য পরিবর্তনশীল এবং ষ্টক থাকা সাপেক্ষে।

সকল পণ্য হালাল রুপে বাছাই করে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে ধুয়ে রোদে শুকিয়ে বাজারজাত করা হয়।
বনাজী ঔষধালয়ে নুতন পণ্যের অর্ডার বিবরনমূল্য জানতে ফেসবুক     
পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন, share করে সহযোগিতা করুন প্লিজ।
ভেষজ গাছ গাছড়ার গুনাগুণ  উপকারিতা জানতে ভিজিট করুন এবং  subscribe করুন।

Please subscribe/like/follow for next posts, Thanks.www.natureandentertainments.com

ভিনেগার বা সিরকা এখন শুধুই রান্না বা আচারের উপকরণ নয়। স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্যসচেতন মানুষের কাছেও এর কদর কম নয়। তবে ত্বক ও চুলে লাগাতে এবং ওজন কমাতে সরাসরি সাদা ভিনেগার পান করা যাবে না। বেছে নিতে হবে অ্যাপল সিডার ভিনেগার বা এসিভি। সহনীয় মাত্রার অম্লমিশ্রণ এবং শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় উপাদান থাকার কারণে দিন দিন বাড়ছে এসিভির ব্যবহার।
সুস্থ থাকতে ভিনেগার
ওজন কমাতে অ্যাপল সিডার ভিনেগারের ব্যবহার আজকের নয়। শরীরের কোলেস্টরল কমাতে, বারবারÿক্ষুধা লাগার প্রবণতা কমাতে কাজে আসে এই এসিভি। গাঢ় মধুর মতো রং আর হালকা টক গন্ধের এসিভিতে আছে সেলুলোজ এবং অ্যাসিটিক অ্যাসিডের এমন একটি সমন্বয়, যা শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে।
রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালের প্রধান পুষ্টিবিদ সালমা পারভিন জানালেন, প্রতিদিন এক থেকে দুই চামচ এসিভি শুধু ওজন কমায় না, মেটাবলিজম বাড়ায়, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের জোগান দেয়। এতে প্রচুর পরিমাণে আঁশ (ফাইবার) আছে, যা কোষ্ঠকাঠিন্য কমাতে সহায়ক। টাইপ টু ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি কমিয়ে শরীরে হৃদ্রোগের আশঙ্কা কমায়। তবে ডায়াবেটিসের জন্য যদি আপনার ওষুধ খেতে হয় তবে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। ভিনেগারের কটু গন্ধ ও স্বাদ অনেকেই সহ্য করতে পারেন না। সে ক্ষেত্রে সালমা পারভিন পরামর্শ দিলেন সালাদের ড্রেসিং হিসেবে অ্যাপল সিডার ভিনেগার ব্যবহার করার।
কিছু কিছু ক্ষেত্রে এসিভি খাওয়া সম্পূর্ণ নিষেধ বলে জানালেন সালমা পারভিন। কিডনি রোগী, অন্তঃসত্ত্বা মা এবং শিশুকে দুধ খাওয়ান এমন মায়ের এসিভি খাওয়া নিষেধ। এতে করে শরীরে চিরস্থায়ী ক্ষতির আশঙ্কা থাকে।
শরীরের ভেতরে শুধু নয়, বাইরের যত্নেও এসিভির তুলনা নেই। একমাথা সুন্দর চুল পেতে, ত্বক সাজাতে কত প্রসাধনীও না ব্যবহার করা হয়। কিন্তু দিন শেষে মেকআপ ও ব্যস্ততার পরত সরানোর কথা ভাবেন কয়জন। অথচ গোসলের সময় চুল ও ঘুমানোর আগে ত্বক পরিষ্কার রাখাটা খুব দরকার। কারণ ঘুমের মধ্যেই শরীর নিজ থেকেই নিজের ধকল সারিয়ে তোলার কাজটি করে। তাই রূপচর্চায়, ত্বকের ও চুলের যত্নে ভিনেগারের ব্যবহার বাড়ছে দিন দিন। কিন্তু কীভাবে নিরাপদে ত্বক ও চুলের যত্নে ভিনেগার ব্যবহার করবেন? তারই কিছু উপায় বাতলে দিলেন বিন্দিয়া এক্সক্লুসিভের প্রধান রূপবিশেষজ্ঞ শারমিন কচি।
ঝলমলে চুল পেতে
চুলে প্রাকৃতিক উজ্জ্বলতা নিয়ে আসতে চাইলে ব্যবহার করতে পারেন এসিভি। চুলে শ্যাম্পু করার পর এক মগ পানিতে এক টেবিল চামচ এসিভি মিশিয়ে ধুয়ে নিন চুল। এতে করে চুলে জমে থাকা ধুলার পরত চলে যাবে। খসখসে চুল নরম করতে ভেজা চুলের গোড়ায় আঙুল বা তুলার সাহায্যে ১: ২ অনুপাতে এসিভি এবং পানির মিশ্রণ লাগান এবং ১০ মিনিট চুল আঁচড়ে নিন। এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি চুলকে নরম এবং ঝলমলে করে, তাই এরপরে আর কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে না।
উকুনও মারতে পারে এসিভির। দুই টেবিল চামচ নারকেল তেল কুসুম গরম করে নিন, তাতে মেশান এক টেবিল চামচ এসিভি। চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ঘষে ঘষে লাগান। মিনিট পনেরো পরে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহখানেকের মাথায় চুল থেকে উকুন চলে যাবে।
চুল পড়া কমাতেও কাজে আসে অ্যাপল সিডার ভিনেগার। এই জন্য এসিভি পেস্ট তৈরি করে ব্যবহার করুন। এক টেবিল চামচ এসিভির সঙ্গে সমপরিমাণ পানি এবং অ্যালোভেরা জেল ফেটিয়ে ঘন করে নিন। মাথার ত্বকে ঘষে ঘষে লাগান। তারপর একটি তোয়ালে দিয়ে চুল মাথা মুছে রাখুন ৩০ মিনিট। এভাবে সপ্তাহে তিন দিন এই প্যাকটি লাগান। চুলের ঘনত্ব বাড়বে, চুল পড়াও কমবে।
ছত্রাক ও খুশকি কমাতে আধা কাপ অ্যাপল সিডার ভিনেগার, এক কাপ টক দই এবং এক কাপ পানি মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ঘষে ঘষে লাগিয়ে চুল আঁচড়ে নিন। মিনিট পনেরো পরে ধুয়ে ফেলুন।
ত্বকের যত্নে, ত্বকের সুরক্ষায়
শারমিন কচি জানালেন, ত্বককে সুন্দর ও নিরাপদ রাখতে এসিভির তুলনা নেই। সাধারণত আমাদের ত্বকে একধরনের অ্যাসিডের প্রলেপ থাকে, যা ক্ষতিকর জীবাণুকে ত্বকে প্রবেশ করতে বাধা দেয়। নানা ধরনের পদার্থ ব্যবহার করতে করতে সেই অ্যাসিডের পরিমাণ কমতে থাকে এবং আমাদের ত্বকে জীবাণু প্রবেশ করতে আর কোনো বাধা পায় না। এভাবেই একসময় ত্বকে ব্রণ ও র‌্যাশের জন্ম হয়, ছত্রাকজনিত সংক্রমণ (ইনফেকশন) বাড়ে। এসিভি ত্বকে উপকারী অ্যাসিডের পরিমাণ ঠিক রাখে, পিএইচ ব্যালান্স করে এবং ত্বককে জীবাণু প্রতিরোধে সাহায্য করে।
মেকআপ তোলার পরে কিংবা সারা দিনের ব্যস্ততা শেষে ধুলোবালি ও ময়লায় আমাদের লোমকূপগুলোর মুখ বন্ধ হয়ে যায়। এর ফলে ত্বকে অক্সিজেনের ঘাটতি হয়। তাই গোসলের পানিতে হালকা এসিভি মিশিয়ে নিতে পারেন। সারা শরীরের লোমকূপ শ্বাস নেওয়ার সুযোগ পাবে। প্রতিদিন ঘুমানোর আগে টোনার হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন অ্যাপল সিডার ভিনেগার। এক চামচ পানি, এক চামচ গোলাপজল এবং এক চামচ এসিভি মিশিয়ে নিন। এরপর তুলোর সাহায্যে ত্বকে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে মাখুন। এক মিনিট রেখে দিন, তারপর ঠান্ডা পানির ঝাপটা দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এতে করে লোমকূপের ময়লা কেটে যাবে। ত্বকের ওপরে সারা দিনের ধকল রাতারাতি সারাতেও এর জুড়ি নেই।
রোদের আঁচ ঠেকাতে
গরমের দিনে চেহারায় রোদে পোড়া কালচে ছোপ বা সানবার্ন সাধারণ একটি সমস্যা। কালচে ছোপ কমাতে জুড়ি নেই এসিভির। এক কাপ এসিভি, এক কাপ গোলাপজল, এক কাপ পানির মিশ্রণ তৈরি করে ফ্রিজে রেখে দিতে পারেন। ঘরে ফিরে মুখ, গলা, হাত এবং পায়ে মেখে বাতাসে শুকিয়ে নিন এক মিনিট। এরপর নরম কাপড়ের সাহায্যে আলতো করে ঘষে পরিষ্কার করে নিন।
স্বল্প সময়ে ব্রণ সারানোর ভালো উপায় অ্যাপল সিডার ভিনেগার। এটি খুব দ্রুত ত্বকের গভীরে প্রবেশ করতে পারে, ফলে ব্রণের জীবাণু ধ্বংস করতে এটি অতুলনীয়। তাই ব্রণ হলে একটি কটনবাড অ্যাপল সিডার ভিনেগার ও পানির মিশ্রণে ডুবিয়ে নিন, তারপর সরাসরি ব্রণের ওপরে ও আশপাশে চেপে ধরুন। এভাবে সকাল–বিকেল দুবার যত্ন নিন। ব্রণের জীবাণু পুরোপুরি শেষ তো হবেই, দাগও পড়বে না।
ফুসকুড়ি ঠেকাতে
রেজর ব্যবহারের ফলে অনেকের ত্বকেই ছোট ছোট ফুসকুড়ির মতো রেজর বাম্প দেখা যায়। রেজর ব্যবহার করার পরে আলতো করে পানি ও এসিভি মিশিয়ে আফটার শেভের বদলে ব্যবহার করুন। কোনো সংক্রমণ হবে না, রেজারের ফলে তৈরি হওয়া ত্বকের শক্ত ভাবও ধীরে ধীরে কেটে যাবে। অনেকের রেজর বাম্পের কারণে ত্বকে ছোট দাগ পড়ে যায়। আফটার শেভ হিসেবে এসিভি ব্যবহারে একসময় তা–ও আর থাকবে না।
গন্ধ দূর করতে
এসিভির আরেকটি কার্যকরী ব্যবহার হলো দুর্গন্ধনাশক হিসেবে কাজ করা। সামনেই আসছে গরমের দিন। আর্ম পিট এবং পায়ে মোজার গন্ধে অনেকেই পড়তে পারেন বিব্রত অবস্থায়। তাই গোসলের পরে আলতো করে এসিভি ও পানির মিশ্রণ মেখে নিন বগলে এবং পায়ে। ব্যাকটেরিয়া তো মরবেই, ধীরে ধীরে ঘামের গন্ধও চলে যাবে। দিন শেষে ঘরে ফিরে কুসুমগরম পানিতে এক চামচ অ্যাপল সিডার ভিনেগার মিশিয়ে নিন। পায়ের মালিশ হবে, জীবাণুর সংক্রমণ কমবে, কালো ছোপও ধীরে ধীরে চলে যাবে।
সূত্র: প্রথম আলো।







Newer Posts Newer Posts Older Posts Older Posts

Comments

Post a Comment