Jatropha gossypiifolia/ভেরেন্ডা, Uses of Jatropha/ভেরেন্ডার গুণ

 Jatropha gossypiifolia/ভেরেন্ডা

                                                     Common Name: Jatropha gossypiifolia

A Potter Wasp (Delta lepeleterii) looking to feed from the flowers

General Information

Jatropha gossypiifolia is a much-branched, somewhat succulent, deciduous to evergreen shrub growing up to 3 metres tall

Although poisonous, the plant is often used in traditional medicine, being harvested from the wild for local use. An attractive plant, it is often grown as an ornamental where it is valued in particular for its foliage, which is often tinted purplish or reddish, and for its dark red flowers

The root contains jatrophine, a toxic alkaloid

The viscid sap is said to be poisonous

The fruits of the plant are poisonous to humans and animals. The toxic substance is a toxalbumin which, when eaten, leads to symptoms of gastro-enteritis and eventual death of some animals

Range

S. America - Paraguay, Brazil, Ecuador, Colombia, Venezuela, the Guyanas; C. America - Costa Rica to Mexico; Caribbean.

Edible Uses

There are reports that the leaves are sometimes eaten in some areas of west Africa

Medicinal

The leaves are blood purifier, febrifuge, purgative and stomachic

A decoction is taken to cleanse the blood and for treating venereal disease, heart problems, diarrhoea, stomach ache and indigestion

The leaf-sap is applied to the tongues of babies for treating thrush

A poultice of the leaves is used for treating sores, bruising, swellings, inflammations, headaches and piles

An infusion of the leaves is mixed with soft grease for applying to cuts

The sap has a widespread reputation for healing wounds, as a haemostatic and for curing skin problems; it is applied externally to treat infected wounds, ulcers, cuts, abrasions, ringworm, eczema, dermatomycosis, scabies and venereal diseases

It is also used against pains, including bee and wasp stings

The fruits and seed are boiled in liquid as a remedy for stomach ache

The seeds are used as a purgative and to expel internal parasites

In Madura, Indonesia, 20 seeds taken after roasting is considered to be a single dose for an adult

Curcin and an emetic are present

An oil obtained from the seeds is a powerful purgative and emetic, with an action similar to that of Jatropha curcas

It is taken to expel internal parasites

The oil has been used externally as a rubefacient to treat rheumatic conditions and a variety of skin conditions, including leprosy, although its use on the skin may also cause an irritative rash

The yellowish-brown pith of old stems is sold in Ghana markets as a medicine to cure a headache. It is wrapped in a clean cloth and inserted into the nostrils of the patient to cause sneezing

A bark decoction is used as an emmenagogue

The dried and pulverized root bark is made into poultices and is taken internally to expel worms and to treat oedema[299

The whole plant has been popularly used in Costa Rica for treating cancers

The plant contains jatropholone terpenes, which have antitumor properties

Gossypibetiline, tetrahydrogossypibetiline, gadain and the irritant diterpenoid 12-deoxy-16-hydroxy-phorbol have been isolated[348

The leaf contains tannins and histamines

An alcoholic root extract showed significant inhibitory activity in different human cancer cell lines. This finding led to the isolation of the macrocyclic diterpenes jatrophone and related jatrophanes. In addition, it was found that jatrophone had direct inhibitory effects on contractions of cardiac and smooth muscle preparations, which were typically non-competitive in nature

An ethanol extract from the stems caused a significant and dose-dependent reduction of the systolic blood pressure

A leaf extract showed significant activity as an anticoagulant for haematological analyses. The anticoagulant effect of the extract was found to be comparable to that of dipotassium ethylenediamine tetraacetic acid. The leaf extract must be purified to remove interfering substances to make it suitable for biochemical analyses. On the contrary, the sap from the stem showed significant coagulant activity in vitro

Crude hot water extracts from the aerial parts were examined for antimalarial properties against Plasmodium falciparum in vitro, and were found to be capable of 100% growth inhibition

Hexane extracts of the fresh fruits showed significant activity against fungi and some bacteria

Stem sap was found to inhibit the growth of Helminthosporium oryzae and Alternaria brassicicola. The ethanolic stem extract showed significant larvicidal activity against larvae of the tick Boophilus microplus

In addition to the compounds mentioned above, phytochemical investigations revealed the presence of lignans (e.g. Gadain, jatrodien, gossypifan, gossypidien and prasanthaline) in the light petroleum extract of stem, root and seeds, the alkaloid jatrophine in the sap, and flavonoids (apigenin, vitexin and isovitexin) and triterpenes in the ethanolic leaf extract

Agroforestry Uses:

The plant is often grown as a hedge

It is planted around African villages, where it is believed to confer protection from fire

Other Uses

An oil from the seed is used as an illuminant

The energy value of the seed oil is 42,000 kJ/kg

The stem sap is strongly active against the snail Lymnaea acuminata in its aquatic environment. The toxicity of the sap is partly due to inhibitory effects on acetylcholinesterase, and on acid and alkaline phosphatases in the snail. The cyclic peptides cyclogossine A, B and C were isolated from the stem sap. Methanol and n-butanol extracts of unripe seeds showed significant molluscicidal activity against the snails Lymnaea luteola and Indoplanorbis exustus, the n-butanol extract being more toxic to the egg and adult stages of both snails. Furthermore, jatrophone and jatropholone A and B from the roots were tested against the snail Biomphalaria glabrata. Only jatrophone showed significant molluscicidal activity

ভেরেন্ডার গুণ, জেনে রাখুন


ভেরেন্ডা, ভেন্না, বেড়াসহ নানা নামে ডাকা হয় এই উদ্ভিদটিকে। পল্লী কবি জসিম উদ্দীন তার বিখ্যাত কবিতা আসমানিতে ভেরেন্ডা গাছ নিয়ে লিখেছিলেন ‘বাড়ি তো নয় পাখির বাসা ভেন্না পাতার ছানি একটু খানি বৃষ্টি হলে গড়িয়ে পড়ে পানি’।

ভেরেন্ডা বিরুৎ জাতীয় বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদ এর ইংরেজি নাম Jatropha  বৈজ্ঞানিক নাম Jatropha curcas Ges Euphorbi Aceae পরিবারে অন্তর্ভূক্ত। গাছের কান্ড সবুজ ও হালকা খয়েরী দুই রঙ্গের হয় পাতা সবুজ। উচ্চতায় সাধারণত ৩ থেকে ৭ ফিট পর্যন্ত হয়। গাছের কান্ড নরম ডাল কাটলে এবং পাতা ছিঁড়লে সাদা আঁঠালো রস বের হয়। পাতা চওড়া, দেখতে অনেকটা হাতের পাঞ্জার মত। কান্ডের চারদিকে গোল হয়ে ছোট ছোট হলুদ ফুল হয়। এই ফুল থেকে পরবর্তী নরম কাটা যুক্ত ফল হয় ফলের রঙ সবুজ। বাদামী ও কালচে রঙ্গ ধারণ করে ফল পাঁকে। পাঁকা ফল আপনা আপনি ফেঁটে বীজ পড়ে যায়, বীজ কালো চকচকে বাদামী রং মিশ্রিত।

ভেরেন্ডা গাছ গড় আয়ু ৫০ বছর পর্যন্ত তবে আমাদের দেশে ১ থেকে দুই বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকে এরপর গাছ কেটে ফেলে মানুষ জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করে। এই গাছের বয়স বাড়লে ফলনও বাড়ে। ভেরেÐার আড়াই কেজি বীজ থেকে প্রায় এক লিটার তেল পাওয়া যায়। ভেরেন্ডার বীজ থেকে ভোজ্য ও ঔষধি তেল বানানো যায়। উন্নত দেশ গুলোতে ভেরেন্ডার তেল ডিজেলের বিকল্প (বায়েডিজেল) হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। আমাদের দেশে গ্রাম অঞ্চলে এর বীজ সিদ্ধ করে থেঁতলে নিয়ে পানিতে জ্বাল দিয়ে বুদবুদ উঠলে সেগুলো উঠিয়ে নিলেই তেল হয়ে যায়। এই তেল কেউ খায় আবার কেউ ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করে।

ভেরেন্ডার রয়েছে নানাবিধ ভেষজ গুণ। এর তেল দিয়ে কবিরাজরা নানা রোগ নিরাময়ের ওষুধ তৈরি করে থাকেন।

রাতকানা রোগ হলে ১০ গ্রাম ভেরেন্ডা পাতা ঘিয়ে ভেজে সেবন করলে রোগটি থেকে সহজেই আরোগ্য লাভ করা করা যায়।

প্রস্রাবের স্বল্পতার ক্ষেত্রে ২০ গ্রাম ভেরেন্ডার মূলের রস খেলে উপকার পাওয়া যায়।

বাতের ব্যথায় ১ থেকে ২ গ্রাম ভেরেÐার তেল লবনের সাথে মিশিয়ে আক্রান্ত স্থানে মালিশ করলে ব্যথা কমে যায়।

কোষ্টকাঠিণ্য নিরাময়ে ২ থেকে ৪ চা চামচ মূলের রস সকালে ও বিকালে পানিসহ সেবন করলে আরোগ্য হয়। অম্ল্শূল রোগে ৫ গ্রাম কচিপাতার রস পানিতে সিদ্ধ করে ছেঁকে সেবন করলে রোগটি নিরাময় হয়।

৯০ দশক পর্যন্ত গ্রামে ছোট শিশুদের জ্বরের সময় এর ছাল গলায় ঝুলিয়ে দেওয়া হত এতে করে শিশুরা আর বমি করত না। শিশুদের ঠান্ডা লাগলে তৈল গরম করে বুকে লাগালে ঠান্ডা উপশম হতো বলে জানান রাজীবপুর উপজেলার সবুজ বাগ গ্রামের প্রবীণ অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক আলহাজ্ব ইউনুস আলী মাস্টার। আধুনিক চিকিৎসা সেবার ফলে এসব এখন আর ব্যাবহার হয় না বলেও জানান তিনি। তেল তৈরি করার সময় যে খৈল পাওয়া যায় তা জৈব সার হিসেবে ব্যবহার করা যায়। সাবানের জন্য গ্লিসারিন ও পাওয়া যায় এর তেল থেকে। খাবারের রুচি বাড়ায় মাথায় দিলে ঠান্ডা অনূভুতি হয় আগুনে পোড়া বা দুর্ঘটনাজনিত শরীরের কালো দাগ মেশাতে সাহাস্য করে এই তেল। পঁচা পুকুর ডোবা নালা খাল বা বিলের জলাবদ্ধ পচা পানিতে নামার সময় জাগ দেওয়া পাট ধুঁতে এই তেল শরীরে মাখলে পানিতে চুলকানি হয় না এবং জোক ধরে না।

নানা গুণ সমৃদ্ধ এই বীজ গুলো গ্রামের দরিদ্রের জনগোষ্ঠীর মানুষ আগে সংগ্রহ করে শুকিয়ে বাজারে বিক্রি করত স্থানীয় বাজারে ধান পাট গম ব্যবসয়ীরা ওজন করে কিনতো ভেরেন্ডার বীজ পরে এগুলো নারায়নগঞ্জের পাঠিয়ে দিত ব্যবসায়ীরা। গাছটি কমে যাওয়ায় এখন এর বীজ আর কেউ সংগ্রহ করে না। চলতি পথের ধারে কোন পরিত্যাক্ত জায়গায় হঠাৎ দেখে মেলে এই নানা ভেষজগুণ সমৃদ্ধ এই উদ্ভিদটির।সরকারি বা বেসরকারিভাবে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়ে বাণিজ্যিকভাবে চাষ করলে একটি অর্থকারী ঔষধি ফসল হবে ভেরেন্ডা।সৌজন্যে- মিলি রহমান, ছবি গুগল।

ভেষজের গুণাগুণ ও এ ধরণের টিপ্স এবং অর্ডার করতে https://www.facebook.com/herbalfoods71247 পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন। লিংকে না পেলে  বনাজী ঔষধালয়/Herbs for healthy life. পেইজ সার্চ দিন। গাছ-গাছড়া, ছাল, লতা-পাতা ও বীজের উপকারিতা বিস্তারিত  জানতে ভিজিট করুন  www. natureandentertainments .com

বনাজী ঔষধালয়

বাড়ী নং ২৮, রোড ৪, ব্লক এফ,বনশ্রী, রামপুরা, ঢাকা।

Newer Posts Newer Posts Older Posts Older Posts

Comments

Post a Comment