Kalanchoe pinnata (Lam.)/পাথরকুচি Uses of Kalanchoe pinnata (Lam.) Pers./পাথরকুচি পাতার অবিশ্বাস্য ঔষধি গুণাগুণ

Kalanchoe Pinnata or Patharchatta is a succulent perennial medicinal herb which is found almost throughout India. It is small plant which is also used for ornamental purpose in gardens. The plant can easily grow in pots. Patharchatta does not grow from seeds. It propagates from the leaves of the plant and a single leaf can produce 5-10 plants.
Table of Contents 
1 General Information
2 Vernacular names / Synonyms
2.1 Scientific Classification
2.2 Synonyms
2.3 Constituents of Kalanchoe Pinnata
3 Important Medicinal Properties
4 Medicinal uses of Patharchatta
4.1 The Dosage of Leaf
5 How to grow Patharchatta Plant?
Patharchatta is used as a folk medicine in India, tropical Africa, tropical America, China, and Australia. The leaves are used both externally and internally. They have diuretic, wound healing, hepatoprotective, antimicrobial, antihypertensive and anti-inflammatory activities and are beneficial in urinary bladder and kidney stones, intestinal problem, ulcers, arthritis, inflammation, conjunctivitis, menstrual disorders, migraine, urethritis, wound, dysentery, ulcers, indigestion, etc.
General Information
Plant Description: It is an erect, glabrous plant reaching up to 1 m high. The stem is obtusely 4 – angled. The lower and uppermost leaves are simple. The middle ones pinnately 3- to 5- foliolate. Flowers pendulous in lax panicles. Calyx cylindric, 4-lobed. Corolla yellow, constricted in the middle; lobes 4. Stamens 8, in 2 series. Carpels 4, almost free. Fruit 4 follicles, enclosed in the persistent papery calyx and corolla. It grows wild in shaded places and along water courses. It is usually cultivated for ornamental purpose.
Part(s) used for medicinal purpose: Leaves
Plant type / Growth Habit: Succulent herb
Duration: Perennial
Distribution: Throughout the warm and moist parts of India, especially abundant in West Bengal. Distributed in other temperate regions of Asia, Australia, New Zealand, West Indies, Macaronesia, Mascarenes, Galapagos, Melanesia, Polynesia and Hawaii.
Habitat: Shady places, arid lowlands and moist uplands.
Propagation and management: Vegetative propagation, by producing roots on leaf margin. The leaves fall on soil and produces roots and thus grow as weed.
Vernacular names / Synonyms
Scientific name: Kalanchoe Pinnata
Sanskrit name: Parn beej, hemsagar, Asthibhaksha, Parnabija, Parnabijah
English: Air plant, Good luck leaf, Hawaiian air plant, Life plant, American Life Plant, Floppers
Hindi: Patharchattam, Patharchur, Pather Chat, Paan-futti
Bengali: Koppat, Patharkuchi, Gatrapuri, Kaphpata, Koppata, Pathorkuchi
Kannada: Kaadubasale, Dadabadike, Patrajeeva
Malayalam: Elachedi, Elamulachi, Ilamarunnu, Ilamulachi
Telugu: Ranapala
Tamil: Runa kalli
Other Names: Cathedral Bells, Air Plant, Life Plant, Miracle Leaf, Goethe Plant, Wonder of the World, Mother of Thousands
Unani: Zakhm-hayaat, Zakhm-e-Hayaat, Pattharchoor, Pattharchat.
Siddha: Ranakkalli
Chakma: Jeos, Jeus, Patharkuchi, Roah-Kapanghey
Tripura: Jeos, Naproking, Pathorkuchi
Scientific Classification
The botanical name of Pattarchatta is Kalanchoe Pinnata. It belongs to plant family Crassulaceae. Below is given taxonomical classification of the plant.
Kingdom: Plantae
Subkingdom: Tracheobionta
Superdivision: Spermatophyta
Division: Magnoliophyta
Class: Magnoliopsida
Subclass: Rosidae
Order: Rosales
Family: Crassulaceae (Stonecrop family)
Genus: Kalanchoe Adans. (widow’s-thrill)
Species: Kalanchoe pinnata (Lam.) Pers.
Synonyms
Bryophyllum pinnatum (Lam.) Oken
Bryophyllum calycinum Salisb.
Cotyledon pinnata Lam.
Constituents of Kalanchoe Pinnata
Kalanchoe Pinnata contains n-alkane, n-alkanol, alpha- and beta-amyrin and sitosterol.
Leaves contain Wax hydrocarbnons, wax alcohols, malic, isocitric and citric acids, glycosides of quercetin and kaempferol, fumaric acid, bryophyllin B and phenolic components.
Important Medicinal Properties
Kalanchoe Pinnata is rich in medicinal properties.
Below is given medicinal properties along with the meaning.
Astringent: Causing the contraction of the skin cells and other body tissues and helps to stop bleeding.
Analgesic: Relieve pain.
Anti-aggregant: Decrease platelet aggregation and inhibit thrombus formation.
Anti–dysenteric: Relieving or preventing dysentery.
Anti–inflammatory: Reducing inflammation by acting on body mechanisms.
Antiseptic: Capable of preventing infection by inhibiting the growth of infectious agents.
Antispasmodic: Used to relieve spasm of involuntary muscle.
Cytotoxic: Tending to arrest or prevent cancer
Diuretic: Promoting excretion of urine/agent that increases the amount of urine excreted.
Disinfectant: Destroys bacteria.
Emollient: Soothing and softening effect on the skin or an irritated internal surface.
Hemostatic: Retarding or stopping the flow of blood within the blood vessels.
Immunomodulatory: Modifies the immune response or the functioning of the immune system.
Styptic: capable of causing bleeding to stop when it is applied to a wound.
Kalanchoe Pinnata is used to treat clinical conditions such as asthma, blood dysentery, boils, bronchial affections, cough, diabetes, gout, insect bites, jaundice, dysuria, epilepsy, gout, hoping cough, jaundice, nephrolithiasis, painful micturition, pneumonia, respiratory troubles, tuberculosis, ureterolithiasis, arthritis, inflammation, hypertension and kidney stones. It stimulates production of urine and hence helps in urinary stones. Due to astringent and hemostatic properties it is used in bleeding disorders and hemorrhage.
Stone problems, recurrent stones in the body
Leaves of this plant is very good for removing kidney stone and multiple small gall bladder stone. Chew leaves (2-3) or extract leaves juice and drink twice a day.
Arresting bleeding from wounds, cuts, ulcers
The juice or the bruised fresh leaves or the roasted leaves of Kalanchoe pinnata is taken.
Blood mixed diarrhea
Mix Patharchatta leaf juice (3 ml), jeera (3 g) and ghee (6 g) and take regularly for a few days.
Burns
Plant or leaf paste is applied externally.
Boils and Carbuncles
Paste of whole plant with cumin seeds are applied.
Blood in stools diarrhea and dysentery
Juice of leaves 2-5 ml + Ghee 4-10 ml + Jeera powder, is given.
Bloating
Juice obtained from 4-5 leaves is mixed with one teaspoonful Mishri and one cup of warm water and taken orally.
Broken healing ulcers, abscesses, boils, tumors, cysts
The paste or poultice made of leaves of Kalanchoe pinnata (Zakhm-e – hayat) is applied.
Chronic wounds and ulcers
Thick coating of leaf paste is applied. When it turns black the coating is removed and new paste is applied.
Cough
Warm leaf juice taken twice a day with honey for 3-5 days.
Dandruff
Leaf juice + coconut oil is applied on scalp at night.
Discoloration caused by bruises, black eye, inflammation 
Poultice of the roasted leaves or a paste of the fresh leaves or their juice is applied.
Diarrhea
7-14 ml juice of leaves with honey thrice daily.
Dysentery
Juice extracted from equal amount of leaves of Kalanchoe pinnata + Jamun (Syzygium cuminii) and Ber (Ziziphus mauritiana Lamk.) is taken.
Ear pain, otorrhoea (Discharge from ear)
For ear discharge (‘Kaan ka behna’ in Hindi) and pain in ear, warm yellow leaves of Patharchatta and extract its juice. Put few drops in ear.
Headache
Leaf paste applied over forehead.
High blood pressure, scanty urine, Dysuria, Urinary problems
Regularly chew (2-3) leaves of Kalanchoe Pinnata twice day.
Indigestion
Leaf juice is taken twice a day.
Inflammation, joint pain in arthritis, wounds, sprain
Warm leaves of Patharchatta and apply at affected area with pain relieving oil.
Jaundice
Take fresh leaves juice of Kalanchoe Pinnata for the liver problems and Jaundice.
Kidney and bladder stones
Leaf juice is taken internally for 2 weeks. Or
Chew two fresh leaves along with black pepper on an empty stomach. Or
Grind the leaves of the plant. Add turmeric and some jaggery. Take this preparation for 2 weeks.
Leucorrhoea (shevt pradar), cholera
Take Patharchatta leaves juice (2 tablespoon) twice a day.
Non healing wounds
Boil Patharchatta leaves in water and use this water to wash wounds. Alternatively you can use honey on wound is very helpful in the treatment of any kind of wounds even it can cure chronic wounds with support of other Ayurvedic medicines.
Pain in eye
2 drops of leaf juice is used as eye drop.
Piles and hemorrhoids
Mix leaf juice with black pepper powder and take regularly for a few days.
Poisoning due to bites of animals
Warm Patharchatta leaves are applied over the bitten parts.
Stomach disorder
2 spoonful of the leaf juice is taken orally.
Skin diseases, swellings due to bruises, bleeding from cuts and wounds
The paste of leaves is applied topically.
Smelly sweat, bad body odour
Eat one Patharchatta leaf daily.
To expel or remove spines and thorns from the body
Leaf juice mixed with salt is applied.
Tinea/ringworm
The leaf paste is applied topically to treat dermatophytosis.
Ulcerative colitis
The leaf juice is given.
Wounds
Leaves / peeled leaf is applied.
Other uses: The plant is cultivated as ornamental houseplants.
The Dosage of Leaf
The leaf juice can be taken in a dose of 10-30 ml.
পাথরকুচি পাতা
পাথরকুচি পাতার পাউডার পাওয়া যায়। ৫০ গ্রাম  ৫০/- টাকা।
বাজার দর অনুযায়ী মূল্য পরিবর্তনশীল এবং ষ্টক থাকা সাপেক্ষে।
সকল পণ্য হালাল রুপে বাছাই করে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে ধুয়ে রোদে শুকিয়ে বাজারজাত করা হয়।
বনাজী ঔষধালয়ে নুতন পণ্যের অর্ডার বিবরনমূল্য জানতে ফেসবুক     
পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন, share করে সহযোগিতা করুন প্লিজ।
ভেষজ গাছ গাছড়ার গুনাগুণ  উপকারিতা জানতে ভিজিট করুন এবং  subscribe করুন। ধন্যবাদ।
Please subscribe/like/follow for next posts, Thanks.www.natureandentertainments.com
চিকিৎসার ক্ষেত্রে যেসব ঔষধি গাছ প্রাচীন কাল থেকে ব্যবহার হয়ে আসছে তার মধ্য পাথরকুচি অন্যতম। এটি দেড় থেকে দুই ফুট উঁচু হয়। পাতা মাংসল ও মসৃণ, আকৃতি অনেকটা ডিমের মতো। চারপাশে আছে ছোট ছোট গোল খাঁজ। এই খাঁজ থেকে নতুন চারার জন্ম হয়। অনেক সময় গাছের বয়স হলে ওই গাছের খাঁজ থেকে চারা গজায়। পাথরকুচি পাতা মাটিতে ফেলে রাখলেই অনায়াসে চারা পাওয়া যায়। কাঁকর মাটিতে সহজেই জন্মে। তবে ভেজা, স্যাঁতসেঁতে জায়গায় দ্রুত বাড়ে।
গ্রামীণ চিকিৎসার মধ্যে এটি অন্যতম উপকারী। চিকিৎসা বিজ্ঞানীদেন মতে, পাথরকুচি পাতা কিডনি রোগসহ বিভিন্ন রোগের বিশেষ উপকারে আসে। 
পাথরকুচি পাতার অবিশ্বাস্য ঔষধি গুণাগুণ
১. কিডনির পাথর অপসারণ
পাথরকুচি পাতা কিডনি এবং গলগণ্ডের পাথর অপসারণ করতে সাহায্য করে। দিনে দুবার ২ থেকে ৩টি পাতা চিবিয়ে অথবা রস করে খান।
২. পেট ফাঁপা
অনেক সময় দেখা যায় পেটটা ফুলে গেছে, প্রসাব আটকে আছে, আধোবায়ু, সরছে না, সেই ক্ষেত্রে একটু চিনির সাথে এক বা দুই চা-চামচ পাথর কুচির পাতার রস গরম করে সিকি কাপ পানির সাথে মিশিয়ে খাওয়াতে হবে। এর দ্বারা মূত্র তরল হবে, আধো বায়ুরও নিঃসরণ হবে, ফাঁপাটাও কমে যাবে।
৩. মেহ
সর্দিজনিত কারণে শরীরের নানান স্থানে ফোঁড়া দেখা দেয়। যাকে মেহ বলা হয়। এ ক্ষেত্রে পাথরকুচির পাতার রস এক চামুচ করে সকাল-বিকাল একসপ্তাহ খেলে উপকার পাওয়া যায়।
৪. রক্তপিত্ত
পিত্তজনিত ব্যথায় রক্তক্ষরণ হলে দু’বেলা এক চা-চামচ পাথর কুচির পাতার রস দুদিন খাওয়ালে সেরে যাবে।
৫. মৃগী
মৃগী রোগাক্রান্ত সময়ে পাথর কুচির পাতার রস ২-১০ ফোঁটা করে মুখে দিতে হবে। একটু পেটে গেলেই রোগের উপশম হবে।
৬. সর্দি
সর্দি পুরান হয়ে গেছে, সেই ক্ষেত্রে এটি বিশেষ উপকারী। পাথরকুচি পাতা রস করে সেটাকে একটু গরম করতে হবে এবং গরম অবস্থায় তার সাথে একটু সোহাগার খৈ মেশাতে হবে। তিন চা-চামচের সাথে ২৫০ মিলিগ্রাম যেন হয়। তা থেকে দুই চা চামচ নিয়ে সকালে ও বিকালে দুবার খেলে পুরান সর্দি সেরে যাবে এবং সর্বদা কাশি থেকে রেহাই পাওয়া যাবে।
৭. শিশুদের পেট ব্যথায়
শিশুর পেটব্যথা হলে, ৩০-৬০ ফোঁটা পাথর কুচির পাতার রস পেটে মালিশ করলে ব্যথার উপশম হয়। তবে পেট ব্যথা নিশ্চিত হতে হবে।
৮. ত্বকের যত্ন
পাথরকুচি পাতায় প্রচুর পরিমাণে পানি থাকে যা ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। সাথে সাথেই এর মধ্যে জ্বালাপোড়া কমানোর ক্ষমতা থাকে। যারা ত্বক সম্বন্ধে সচেতন, তারা পাথরকুচি পাতা বেটে ত্বকে লাগাতে পারেন। ব্রণ ও ফুস্কুড়ি জাতীয় সমস্যাও দূর হয়ে যাবে।
৯. কাটাছেঁড়ায়
টাটকা পাতা পরিমাণ মত হালকা তাপে গরম করে কাটা বা থেতলে যাওয়া স্থানে সেক দিলে আরাম পাওয়া যায়।
১০. পাইলস
পাথরকুচি পাতার রসের সাথে গোল মরিচ মিশিয়ে পান করলে পাইলস্ ও অর্শ রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।
১১. জন্ডিস নিরাময়ে
লিভারের যেকোনো সমস্যা থেকে রক্ষা করতে তাজা পাথরকুচি পাতা ও এর জুস অনেক উপকারী।
১২. কলেরা, ডাইরিয়া বা রক্ত আমাশয়
তিন মিলিলিটার পাথরকুচি পাতার জুসের সাথে ৩ গ্রাম জিরা এবং ৬ গ্রাম ঘি মিশিয়ে কয়েক দিন খেলে এসব রোগ থেকে উপকার পাওয়া যায়।
১৩. শরীর জ্বালাপোড়া
দু-চামচ পাথর কুচি পাতার রস, আধা কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে দুবেলা খেলে উপশম হয়।
১৪. পোকা কামড়
বিষাক্ত পোকায় কামড়ালে এই পাতার রস আগুনে সেঁকে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।
১৫. উচ্চ রক্তচাপ
উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে এবং মুত্রথলির সমস্যা থেকে পাথরকুচি পাতা মুক্তি দেয়।
যষ্ঠিমধু গুড়া, কালিজিরা ১নং তৈল আস্ত/গুড়া পাওয়া যাচ্ছে।
মরিয়ম ফুল, চন্দন গুড়া, রিঠা পাউডার, শিকাকাই, মুলতানি মাটি, ত্রিফলা,
             জটামানসী, পুনর্ণবা, ত্বীন ফল, পিংক সল্ট, ব্রাঊন সুগার. কেশুরী মেথি, কারি পাতাসহ দুষ্প্রাপ্য ভেষজ এবং
আজওয়া, আনবারা, মরিয়ম, মসরুখ ও নাগাল।
                    যাবতীয় বাদাম মসলা আস্ত/গুড়ার জন্য পরিদর্শন করুন
          গাওয়া ঘি, মধু সরিষার তৈল! ভেজালে মূল্য ফেরত
      বাড়ী#২৮,  রোড#,  ব্লক#এফ,  বনশ্রী, ঢাকা
             ফোন: ০১৬২০১২০৮১৭






Newer Posts Newer Posts Older Posts Older Posts

Comments

Post a Comment